ধসে পড়ল স্কুলভবনের বিম, অল্পের জন্য রক্ষা পেলো শিক্ষার্থীরা

|

পটুয়াখালী প্র‌তি‌নি‌ধি
পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার পশ্চিম বাউফল নূরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্লাস চলাকালীন হঠাৎ ছা‌দের বিম ভে‌ঙ্গে পর‌ে। এসময় শিক্ষার্থীরা আত‌ঙ্কিত হ‌য়ে প‌ড়ে। ত‌বে এঘটনায় কেউ আহত হয়‌নি।

এ রকম ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে পাঠদান চলছে আরাইনাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়েও। এ দুটি বিদ্যালয়ে রয়েছে চার কক্ষ বিশিষ্ট এক তলা ভবন, যা পাঠদানের অনুপযোগী।

পশ্চিম বাউফল নূরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চার কক্ষ বিশিষ্ট একতলা ভবনটির সবচেয়ে ছোট কক্ষটি প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। বাকি তিনটি কক্ষ শ্রেণি কক্ষ হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ভবনটির অধিকাংশ বিম ও পিলারে বড় আকারের ফাটল ধরেছে। বিম, পিলার ও ছাদের সুড়কি-পলেস্তরা খসে পড়ে রড বেরিয়ে রয়েছে। এরপরও ঝুঁকি নিয়ে পাঠদান চলছে ভবনটিতে।

ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মাধবী রানী বলেন, বৃহস্পতিবার অল্পের জন্য শিশু শিক্ষার্থীরা দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে।

প্রধান শিক্ষক সারমিন সুলতানা শামিমা বলেন, ‘বিদ্যালয়টিতে দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী আছে। পুরো বর্ষা মৌসুমেই ছাদ চুইয়ে পানি পড়েছে। অন্য কোন ভবন না থাকায় বৃষ্টি হলেই পাঠদান বিঘ্নিত হয়। এখন আবার ভবনের বিম ও ছাদের সুড়কি ভেঙ্গে পড়ছে ও পলেস্তরা খসে পড়ছে। ভয়ে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে আসতে চাচ্ছে না। আর অভিভাবকরাও তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে ভয় পাচ্ছেন। এ কারণে দিন দিন শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে যাচ্ছে।’

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ রিয়াজুল হক বলেন, ‘সরেজমিনে দেখেছি বিদ্যালয় দুটির ভবন খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই বিকল্প টিনশেড তৈরি করে পাঠদানের ব্যবস্থা করা হবে।’









Leave a reply