বিবর্ণ বার্সা, শিরোপা রিয়ালের

|

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে ছাড়াই স্প্যানিশ সুপার কাপ ফাইনালের ২য় লেগে বার্সেলোনাকে ২-০ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। দুই লেগ মিলিয়ে বার্সার হারের ব্যবধান ৫-১।

মৌসুমের ২য় শিরোপা ঘরে তুলে বেশ ফুরফুরে গ্যালাকটিকোরা। এই জয়ের মধ্য দিয়ে ২০১২ সালের পর সুপারকাপের শিরোপা-খরা ঘুচলো তাদের।

বুধবার রাতে বার্নাব্যুতে রোনালদোকে ছাড়াই ছক কষতে হবে- এমন সমীকরণ আগের ম্যাচ থেকেই মাথায় ছিলো রিয়াল কোচ জিনেদিন জিদানের। তবে আক্রমনভাগে এদিন যে তিনি বেলকেও সাইড বেঞ্চে রাখবেন এমনটা হয়তো ধারণার বাইরে ছিলো বার্সেলোনারও।

প্রথম লেগে ন্যু ক্যাম্পে এসেন্সিও আর ভাসকাস জুটির কারিশমা দেখেই হয়তো জিদানের এমন সিদ্ধান্ত। ন্যু ক্যাম্পে যেখানে শেষ করেছিলেন সেখান থেকেই শুরু এই স্প্যানিয়ার্ডের। ডি বক্সের বাইরে ৩০ গজ দূর থেকে নেয়া তার শট বুঝিয়ে দেয় সামনের মৌসুমে জিদানকে দল নির্বাচনে বেশ ভালো ভুগতে হবে।

বিপরীতে দিন দিন বিবর্ণ হতে থাকা বার্সা ম্যাচে তাদের ভুল পাসের মহড়া দিতে থাকে শুরু থেকেই। ৩৩ মিনিটে ভুলের সুযোগ ভালোই কাজে লাগিয়েছিলেন ভাসকাস। তবে শেষমেশ বাধা হয়ে দাঁড়ায় পোস্ট।

ছন্নছাড়া মেসিবাহিনী যখন ম্যাচে সমতায় ফিরতে মরিয়া তখন ম্যাচটা এক পেশে করে ফেলেন ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনঞ্জেমা। ৩৯ মিনিটে বক্সের ভেতর মার্সেলোর ঠেলে দেয়া বলে সাইড ভলি তাকিয়ে দেখতে হয় উমতিতি, স্ট্যাগানদের।

শিরোপার স্বপ্ন মূলত তখনই মিইয়ে যায় কাতালানদের জন্য। হারের ব্যবধান কমাতেও মেসি-সুয়ারেজদের ভাগ্য এদিন সহায় ছিলো না। দ্বিতীয়ার্ধের ৫২ মিনিটে মেসির শট বাধা পায় ক্রস বারে।

৫৫মিনিটে অবশ্য নিজের দ্বিতীয় গোলটি পেতে পারতেন বেনজেমা। তবে জোরালো শট গোলরক্ষক স্ট্যাগানের গায়ে লেগে ফিরে আসে।

আর ৭১ মিনিটের সংবদ্ধ আক্রমনটা যেমন রিয়ালের রক্ষণভাগের মনোবল জুগিয়েছে তেমন ভেঙ্গে দিয়েছে কাতালানদের নিজেদের প্রতি আস্থাও। একে একে রোবের্তো, মেসির শট কেইলর নাভাস ফেরানোর পর সুয়ারেজের হেড আটকে যায় সাইড পোস্টে।

২০১২ সালে এই টুর্নামেন্টে বার্সেলোনাকে হারিয়েই সবশেষ সুপার কোপা জিতেছিলো রিয়াল মাদ্রিদ। চলতি মৌসুমের বাকী চার ট্রফি এখনো অনেক দূর হলেও, ইতোমধ্যে দুটি শিরোপা জয়ে বেশ প্রফুল্ল জিদান বাহিনী।

/কিউএস









Leave a reply