স্বেচ্ছায় মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে শুক্রবার সুইজারল্যান্ডে যাবেন রিচার্ড

|

‘গত এক মাস ধরে আমি জানি আগামী ৬ সেপ্টেম্বর আমি মারা যাবো। এই অনুভূতি অবর্ণনীয়। হয়তোবা এটা কনডেম সেলে মৃত্যুর জন্য অপেক্ষমান কোনো ব্যক্তির অনুভূতির মতো। কয়েকদিনের মধ্যে আমি মৃত্যুকে আলিঙ্গন করবো। স্বীকার করতে হবে, সাম্প্রতিক সময় মাথা থেকে এই বিষয়টি সরাতেই পারছি না। বেশ কেঁদেছি। কেঁদে কিছুটা শান্তি পেয়েছি।’

কথাগুলো লিখেছেন রিচার্ড শেলি। তিনি কথা বলতে পারেন না। খেতেও পারেন না। কিছুদিন ধরে নিজের ব্লগ চালাচ্ছেন। সেই ব্লগেই মাঝে মাঝে নিজের শারিরীক অবস্থা, মনের অনুভূতিগুলো প্রকাশ করেন লিখে। রিচার্ড মরণব্যাধি মটরনিউরন ডিজিজে আক্রান্ত। বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং দীর্ঘদিন এই রোগে ভূগে মারা গিয়েছিলেন।

২০১৫ সালে ডাক্তাররা ধরতে পারেন ৬৫ বয়সী এই সাবেক স্কুল শিক্ষক এই ব্যাধিতে ভুগছেন। এরপর চিকিৎসা শুরু হলেও, বাস্তবে চিকিৎসা বিজ্ঞান এখনও অসহায় রোগটির কাছে।

ফলে গত ৪ বছরে ধীরে ধীরে শুধু মৃত্যুর দিকেই ধাবিত হয়েছেন এই স্কটিশ।

কয়েক মাসের মধ্যে তার অবস্থা আরও খারাপ হবে। এখন হুইল চেয়ারে বসতে পারলেও তখন সেটাও সম্ভব হবে না। কষ্ট তখন বাড়তে আরও বহুগুণে।

রিচর্ডা তার ব্লগেই লিখেছেন, “আমি এই ভয়াবহ রোগের যন্ত্রণা আর সহ্য করতে পারছি না। আমি ক্লান্ত হয়ে গেছি। সময় হয়েছে চলে যাওয়ার।’ রোগটির কষ্ট কেমন তা প্রকশ করেছেন এভাবে- ‘আমি যেন আমার নিজের শরীরে কারারুদ্ধ হয়ে পড়েছি।’

এমন অবস্থায় অনেক ভেবেচিন্তে এবং পরিবারের সাথে আলাপ করে স্বেচ্ছামৃত্যুর পথ বেছে নিয়েছেন তিনি। কিন্তু স্কটল্যান্ডে স্বেচ্ছামৃত্যু বেআইনি হওয়ায় তাতে যেতে হচ্ছে সুইজারল্যান্ডে। ওখানে নিজর হাতে তাকে গ্রহণ করতে হবে একটি জীবননাশক ক্যামিকাল। যার প্রভাবে তিনি মারা যাবেন। কিছুদিন পর শারিরীক অবস্থা বিমান ভ্রমণের উপযোগী থাকবে না।

ফলে তাকে এখনই সুইজারল্যান্ডের উদ্দেশে ছাড়তে হচ্ছে তাড়াহুড়ো করে। এবং চিকিৎসকরা নির্ধারণ করেছেন ৬ সেপ্টেম্বর শুক্রবার তার মৃত্যুর দিন হিসেবে। মৃত্যুশয্যায় স্ত্রী এলিন থাকবেন রিচার্ডের সঙ্গে। ব্লগে এ নিয়ে রিচার্ড লিখেছেন, ‘তার কাছ থেকে বিদায় নেয়া আমার জন্য অসহ্য এক যন্ত্রণা।’

সূত্র: ডেইলি মেইল।









Leave a reply