ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে জোর পূর্বক জমি লিখিয়ে নেয়ার অভিযোগ

|

নোয়াখালী প্রতিনিধি
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরএলাহী ইউনিয়নে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে স্বপরিবারে বিয়াইকে ডেকে এনে আটক রেখে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় জোরপূর্বক বিয়াই এর ঘর-ভিটিসহ ২০ শতাংশ সম্পত্তি স্ট্যাম্পের মাধ্যমে লিখে নেয়। স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সহযোগিতায় দিনভর তাদের আটক রেখে ইউপি সদস্য এসব ঘটিয়েছে।

মারধরের শিকার গোলাম কিবরিয়া, তার স্ত্রী পেয়ারা খাতুন ও ছেলে মো. জুয়েল নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

ভুক্তভোগি গোলাম কিবরিয়া জানান, গত এক থেকে দেড় মাস পূর্বে তার ছোট ছেলের সঙ্গে স্থানীয় ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো:হেলালের মেয়ের সাথে বিয়ে হয়। হঠাৎ মেম্বার ফোনে তাদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে বলে তার ছেলে নাকি আরো একটা বিয়ে করেছে। এ কথায় কিবরিয়া প্রতিবাদ করলে মেম্বার ও তার ছেলেসহ তাকে বেদম মারধর করে। এক পর্যায়ে কিবরিয়ার স্ত্রী ও তার বড় ছেলেকেও মারধর করে এবং বাড়িতে আটক করে রাখে। পরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাব উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণিকে ডেকে এনে পুনরায় মারধর করে এবং জোর পূর্বক স্ট্যাম্পে কিবরিয়ার বসত-ভিটিসহ ২০ শতাংশ জমি আমমোক্তারের মাধ্যমে লিখে নেয়। ভুক্তভোগী পরিবার চিকিৎসা নেয়ার চেষ্টা করলে তাদেরকে স্থানীয় বাদামতলী এলাকায় নিয়ে আটক করে রাখে। খবর পেয়ে গণমাধ্যম কর্মীরা মেম্বার ও আ.লীগ নেতাদের ফোন দিলে পরে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ভুক্তভোগিকে থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলেও জানান তিনি।









Leave a reply