‘মানুষের মতো অধিকার’ পাওয়া ওরাংওটাংটি যাচ্ছে আমেরিকায়

|

১৯৮৬ সালে জার্মানিতে তার জন্ম। পরবর্তীতে ১৯৯৪ সালে তাকে আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্সের একটি চিড়িয়াখানায় নিয়ে আসা হয়। বিগত কয়েক বছর ধরে বেশ আলোচিত এই ওরাংওটাং-এর নাম ‘সান্দ্রা’।

বুয়েন্স আয়ার্সের সেই চিড়িয়াখানার পরিবেশ খুব জঘন্য ছিল। সেখানে চিড়িয়াখানার কোলাহল সে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করত। মানুষের সামনে আসতে চাইতো না।

ওরাংওটাংটি খুব ভালো নেই বুঝতে পেরে কয়েকজন আইনজীবী তার সুরক্ষা ও মানুষের মতোই অধিকার চেয়ে দাবি জানান আদালতে। বেশ কয়েকবার রিট বাতিল হলেও ২০১৪ সালে আদালত রায় দেন সান্দ্রাকে ‘ব্যক্তি’ হিসেবেই গণ্য করতে ও সুরক্ষা দিতে হবে।

প্রায় ২০ বছরেরও বেশি সময় আর্জেন্টিনায় থাকার পর সান্দ্রা এবার নতুন জীবন শুরু করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায়। তার শারিরীক পরীক্ষা নিরীক্ষার পর কানাসে নিয়ে যাওয়া হবে।

ফ্লোরিডায় সান্দ্রা তার নতুন বাড়িতে আরও বন্ধুদের দেখা পাবে। আরও ১১টি ওরাংওটাং রয়েছে ওখানে। এছাড়া রয়েছে খেলাধুলা ও সময় কাটানোর মতো পরিবেশ। বুয়েন্স আয়ার্সের চিড়িয়াখানাটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আর্জেন্টিনার আদালত সান্দ্রাকে যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানোর অনুমতি দেয়।

সান্দ্রার একটি মেয়ে সন্তান ছিল, যেটিকে চীনের একটি চিড়িয়াখানায় বিক্রি করে দেয়া হয় কয়েক বছর আগে।

সূত্র: বিবিসি।









Leave a reply