মুক্তিযোদ্ধাকে ‘ভুয়া’ বানিয়ে সম্পত্তি দখলের চেষ্টা

|

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার আখাউড়া উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়াম্যান ও মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত মাইনুল ইসলামকে ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ বলে তার সম্পত্তি দখলের চেষ্টার অভিযোগ ওঠেছে। আর এতে মদদ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজলের বিরুদ্ধে।

এই ঘটনায় শনিবার দুপুরে প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন মুক্তিযোদ্ধারা। আখাউড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উদ্যোগে এই কর্মসূচি পালিত হয়।

মুক্তিযোদ্ধা ইউনুছ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন আখাউড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার রফিকুল ইসলাম ও জমশেদ শাহ, মুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের নির্বাহী সভাপতি আবুল বাশার প্রমুখ।
প্রতিবাদ সমাবেশে একাধিক মুক্তিযোদ্ধা জানান, মাইনুল ইসলাম তাদের সাথে যুদ্ধ করেছেন। তিনি রণাঙ্গণের একজন বীর সেনানী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০৮ সালে পৈত্রিক সম্পত্তি দুই ভাই ফখরুল ইসলাম ও প্রয়াত মাইনুল ইসলামের মধ্যে বণ্টন হয়েছে। পরে নিজ অংশের জায়গায় মাইনুল ইসলাম বাড়ি তৈরি করেন। তবে ভাই মাইনুলের মৃত্যুর পর সম্প্রতি ছোট ভাই ফখরুল গিয়ে মাইনুলের বাড়িতে তার জায়গা রয়েছে বলে দাবি করেন। মাইনুলের পরিবারের সদস্যরা এতে আপত্তি করেন। সম্প্রতি ফখরুল সংবাদ সম্মেলন করে মাইনুলকে ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ বলে দাবি করেন।

প্রয়াত মাইনুল ইসলামের ছেলে ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম বলেন, আমার চাচার অনৈতিক দাবির পক্ষে আখাউড়া পৌরসভা মেয়র আমাদের ডুপ্লেক্স বাড়িটি ভাঙ্গার নোটিশ দিয়েছেন। চাচার ফখরুল ইসলামের পক্ষ হয়ে মেয়র এমনটি করেছেন বলে তিনি দাবি করেন।

এই ব্যাপারে জানতে চাইলে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, বাড়ির অনুমোদনহীন বর্ধিত অংশটুকু ভাঙার নির্দেশ দিয়েছি। তাদের অভিযোগ সঠিক না।









Leave a reply