ইউএনও’র সরকারি গাড়ি ব্যবহার করেন ভাগ্নি, দুর্ঘটনার শিকার

|

পটুয়াখালী প্রতিনিধি
ব্যক্তিগত কাজে সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন বাউফলের ইউএনও পিজুস চন্দ্র দের ভাগ্নি তৃষ্ণা রানী (২৭)। দুমরে মুচরে গেছে গাড়িটির সামনের অংশ। রবিবার বাউফল বগা সড়কের রাজনগর সরকারী প্রাইমারী স্কুলের কাছে এ ঘটনা ঘটেছে। আহত তৃষ্ণা রানীকে বাউফল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে । এ ছাড়াও আহত হয়েছেন গাড়ির ড্রাইবার মেহেদী ও অফিস সহায়ক আবদুল্লাহ। তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার শিকার এই গাড়িটির দাম প্রায় অর্ধকোটি টাকা।

জানা গেছে, রবিবার বেলা সারে ১১টার দিকে সহকারী কমিশনারের (ভুমি) সাদা রংয়ের রেজিস্ট্রেশন বিহীন (গ্রেজ নং ঢাকা৪৮/১) সরকারী পিকআপ গাড়ি নিয়ে ইউএনও পিজুস চন্দ্র দের ভাগ্নি তৃষ্ণা রানীকে ব্যক্তিগত কাজে বরিশাল পাঠানো হয়। সাথে ছিলেন ইউএনওর অফিস সহায়ক আবদুল্লাহ। গাড়িটি চালাচ্ছিলেন মেহেদী। গাড়িটি বগা ইউনিয়নের রাজনগর সরকারী প্রাইমারী স্কুলের কাছে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ইটবোঝাই ট্রলি গাড়িটিকে সামনের দিক দিয়ে ধাক্কা মারে। এতে সরকারী গাড়িটি ধুমরে মুচরে যায়। দুর্ঘটনায় তৃষ্ণা রানী কপালে প্রচন্ড রকম আঘাত পান। দুপুর ১২টার দিকে তাকে উদ্ধার করে বাউফল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

বাউফল হাসপাতালের স্বাস্থ্য ও পরিবারপরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ প্রশান্ত কুমার সাহা (পিকে সাহা) বলেন, ‘ইউএনও’র ভাগ্নির কপালে তিনটি সেলাই দেয়া হয়েছে।

বাউফলে দীর্ঘ দিন ধরে সহকারী কমিশনারে (ভুমি)পদ শূন্য থাকায় ইউএনও পিজুস চন্দ্র দে ওই পদের অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ওই অফিসের পিকআপ গাড়িটি তিনি ব্যবহার করেন। এর বাইরেও ইউএনওর কালো রংয়ের একটি সরকারী গাড়ি রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, ভুমি অফিসের গাড়িটি তিনি ব্যক্তিগত কাজে বেশী ব্যবহার করে থাকেন। কোন আত্বীয় স্বজন আসলে গাড়িটি তারা ব্যবহার করেন। তুন্নু নামের তার এক ভাইয়ের ছেলে ইউএনওর বাসায় থাকেন এবং বাউফল সরকারী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৬ষ্ট শ্রেণিতে পড়েন। ওই গাড়ি করে তাকে স্কুলে অনা নেয়া করা হয়।

এব্যপা‌রে ইউএনওর ব্যবহৃত ফো‌নে যোগা‌যোগ করা হ‌লে তি‌নি ফোন রি‌সিভ ক‌রেন‌নি।









Leave a reply