লালমনিরহাটে পানি কমছে, ঘরে ফিরছে মানুষ

|

তিস্তা ও ধরলা নদীর পানি কমায় লালমনরিহাটে বন্যা পরস্থিতিরি কিছুটা উন্নতি হয়ছে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তিস্তা ব্যারেজ পয়ন্টে পানি বিপৎসীমার ৪৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তিস্তা অববাহিকায় পানিবন্দি লোকজন ঘরে ফিরতে শুরু করেছেন।

তবে লালমনিরহাটের কুলাঘাট পয়ন্টে ধরলা নদীর পানি বিপৎসীমার ৫৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এখনো পানিবন্দি অবস্থায় রয়েছে ধরলার আশপাশের ৩৫টি ইউনয়িনরে সাড়ে চার লক্ষাধিক মানুষ।

ধরলা নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে থাকায় লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার ৫টি ইউনিয়নসহ আদিতমারীর দুর্গাপুর, সদর উপজেলার মোগলহাট, কুলাঘাট ও বড়বাড়ি ইউনিয়নের বেশিরভাগ মানুষ এখনো পানিবন্দি অবস্থায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

জেলার তিনটি স্থানে সেনাবাহিনীর ক্যাম্প করা হয়েছে। সেনা সদস্যরা বন্যার্তদের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্গত এলাকাগুলোতে শুকনো খাবার, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট ও অন্যান্য ত্রাণসামগ্রী বতিরণ করা হলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা খুবই অপ্রতুল বলে দাবি ভুক্তভোগীদের।

বানভাসী মানুষদের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষে ২৪২ মেট্রিকটন চাল ও পৌনে ৯ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। রোপা আমন ধান ক্ষেত, সবজিসহ ২৫ হাজার ৫শ হেক্টর জমির ফসল নষ্ট এবং ২ হাজার পুকুর ও জলাশয় তলিয়ে গিয়ে সাড়ে ৪ কোটি টাকার মাছ ভেসে গেছে। বানভাসীদের দুর্ভোগের পাশাপাশি গো-খাদ্যের চরম সংকট তৈরি হয়েছে।

/কিউএস









Leave a reply