‘চোর সন্দেহে’ প্রতিবন্ধী যুবককে বেঁধে অমানবিক নির্যাতন

|

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর
চোর সন্দেহে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার খাজুরায় দীপংকর কর্মকার নামে মানসিক প্রতিবন্ধী যুবককে দড়ি দিয়ে বেঁধে অমানবিক নির্যাতন চালানো হয়েছে। গত রবিবার ভদ্রডাঙ্গা ছব্বারের মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার যুবকের বাড়ি ঝিকরগাছা উপজেলার গোয়ালহাটি গ্রামে। তিনি খাজুরা বাজারে তার মামা আনন্দ কর্মকারের বাড়িতে থাকতেন। ঘটনার সময় এক যুবক সেটি ভিডিও করে ফেসবুকে ছাড়লে সোমবার বিকালে ঘটনা প্রকাশ পায়।

এলাকাবাসী জানান, ভদ্রডাঙ্গা গ্রামের অহেদ খানের ছেলে আলম খান, বনগ্রাম মুন্সীপাড়ার কিয়ামের ছেলে নাজমুল ও ভদ্রডাঙ্গা গ্রামের ইকবাল কারীর ছেলে ইলিয়াছ প্রতিবন্ধী যুবককে দড়ি দিয়ে বেঁধে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে মাটিতে ফেলে মুখে ও বুকে লাথি মারছে। আশপাশের লোক তাদের থামতে বললেও তারা কারও কথা শুনছে না। মারপিটের পর দীপংকরের মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে থাকে। এরপর সে নিস্তেজ হয়ে যায়।

এক প্রতক্ষ্যদর্শী জানান, পরে তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তিনি নিজেই আবার হাসপাতাল থেকে খাজুরায় চলে যান।

রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক জামিউজ্জামান হাসনাত জানান, রবিবার সকালে দীপংকার খাজুরা বাজারসংলগ্ন তেলীধান্যপুড়া গ্রমে তার খালাতো ভাই হারানের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বিকেলে খালাতো ভাইয়ের সাইকেল নিয়ে ঘুরতে বের হয়ে ছব্বারের মোড়ে পৌঁছালে স্থানীয় ভদ্রডাঙ্গা গ্রামের অহেদ খানের ছেলে আলমগীর, বনগ্রাম মুন্সীপাড়ার কিয়ামের ছেলে নাজমুল ও ভদ্রডাঙ্গা গ্রামের ইকবাল কারীর ছেলে ইলিয়াছ তার গতিরোধ করে পরিচয় জানতে চায়। এ সময় সে এলোমেলাভাবে কথা বললে তারা তাকে চোর বলে দড়ি দিয়ে বেঁধে মাটিতে ফেলে মুখে ও মাথায় লাথি মারে এবং অমানবিক নির্যাতন চালায়।

বাঘারপাড়ার থানার ওসি জসিমউদ্দিন বলেন, ঘটনাটি ফেসবুকে দেখেছি। এ ব্যাপারে কেউ অভিযোগ দেয়নি।#









Leave a reply