ভূমি সচিবের গাড়ি বিলাস!

|

আছে বিনাসুদে সরকারি ঋণে কেনা নিজের গাড়ি। চড়েন আবার সরকারি গাড়িতে। খরচ নেন দু’টোরই। তার মেয়ে চড়েন মন্ত্রীর জন্য বরাদ্দকৃত আরেকটি সরকারি গাড়িতে। ছেলে চালান টাঙ্গাইলের সেটেলমেন্ট অফিসারের জন্য বরাদ্দ গাড়ি। সব মিলিয়ে ভূমি সচিব মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারির পরিবারে এ যেন গাড়িবিলাস।

সরেজমিন দেখা যায়, ভূমি জরিপ ও রেকর্ড অধিদপ্তরের গ্যারেজে মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর জন্য বরাদ্দকৃত একটি পাজেরো গাড়ি আছে। যার নম্বর ঢাকা মেট্রো-ঘ ১৫-৬৯৪৮। সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলু ব্যবহার করতেন এই গাড়ি। কিন্তু বর্তমান ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ মন্ত্রণালয়ের গাড়ি না নিয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করেন। তবে বসে নেই বিলাসবহুল এ পাজেরো। ভূমি সচিব মাকছুদুর রহমানের কব্জায় এ গাড়ি। ব্যবহার করে গোটা পরিবার।

গাড়িটির ছবি ও নম্বর প্লেট দেখালে দারোয়ান ও ড্রাইভার নিশ্চিত করেন ভূমি সচিবের ছেলে এই গাড়ি ব্যবহার করেন।

এই বিষয়ে ভূমি সচিব মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, নাম্বারটা বলতে পারবো না। একটা গাড়ি ব্যবহার করে। সেটা আমার মেয়ে, আমি দু’জনই ব্যবহার করি। ওর অনার্স শেষের দিকে। জাহাঙ্গীরনগরে পড়ে। আর একটা দুটো পরীক্ষা আছে, এরপর আর ব্যবহারের প্রয়োজন পড়বে না।

ভূমি সচিবের বাসার নিচের গ্যারেজে আছে বিনাসুদে ৩০ লাখ টাকা সরকারি ঋণে নেয়া টয়োটা প্রিমিও। যার নেই ব্যবহার। অথচ প্রতিমাসে রক্ষণাবেক্ষণে বরাদ্দ ৫০ হাজার টাকার পুরোটাই তুলে নিচ্ছেন তিনি।

মন্ত্রণালয়ে সচিব হিসেবে তিনি একটি পাজেরো গাড়িও ব্যবহার করেন যেটির নম্বর ঢাকা মেট্রো-ঘ ১৫-০৮৬৮। এই গাড়িটির রক্ষণাবেক্ষণের জন্যও পুরো ৫০ হাজার টাকা তুলে নিচ্ছেন তিনি। যেটি নিয়মের লঙ্ঘন। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ভূমি সচিবের সরল স্বীকারোক্তি, এটা কোথায় হয় না, বলেন তো দেখি?

এছাড়া, টাঙ্গাইল জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারের (জেডএসও) জন্য কেনা একটি দামি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ ৩৩-৯২৪৪) ব্যবহার করা হয় সচিবের পরিবারের জন্য। টাঙ্গাইলে জেডএসও পদটি দীর্ঘদিন থেকে শূন্য রয়েছে। সম্পূর্ণ বিধিবহির্ভূতভাবে গাড়িটি ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতর ঢাকায় এনে সচিবের পারিবারিক কাজে ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছেন। প্রাইভেট কারটিকে পুরোপুরি প্রাইভেট করে নিয়েছেন ভূমি সচিবের ছেলে আকিব মাকসুদ।

প্রসঙ্গত, ভূমি সচিব মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসেবে ভূমি মন্ত্রণালয়ে যোগ দেন ২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর। সচিব হিসেবে পদোন্নতি পান ২৬ মে।









Leave a reply