সেই বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করলেন শিক্ষা কর্মকর্তা

|

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:

যমুনা টেলিভিশনে সংবাদ প্রচারের পর নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার তালাবদ্ধ সেই বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেছেন শিক্ষা কর্মকর্তা। বুধবার দুপুরে সহকারি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী সানোয়ার ক্রোকিমনিরাবাদ আক্কাস বেপারি মরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে যান। তিনি বিদ্যালয়টি ঘুরে দেখেন এবং এলাকাবাসীর সাথে কথা বলেন।

ইতোমধ্যে ওই বিদ্যালয়টির জন্য দুই শিক্ষক সংযুক্তি দেয়া হয়েছে। তারা হচ্ছেন ত্রিপুর শহীদ স্মৃতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে আমিনুল ইসলাম এবং বাঘাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সানাউল্লাহ মিয়া। পিএসসি পরীক্ষা শেষে বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে যাবেন জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নড়িয়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন।

এ বিষয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিষয়টি জানার পর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে ওই বিদ্যালয়ের জন্য শিক্ষক সংযুক্তের নির্দেশ দেয়া হয়। সেই প্রেক্ষিতে আজ দুই জন শিক্ষককে বিদ্যালয়টিতে যুক্ত হওয়ার চিঠি পাঠানো হয়েছে। নতুন বছরে যাতে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা যায় তার সব ব্যবস্থা করা হবে।

উল্লেখ্য, নড়িয়া উপজেলার ঘড়িষার ইউনিয়নে ২০১২-১৩ অর্থ বছরে স্থাপিত হয় ক্রোকিমনিরাবাদ আক্কাস বেপারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। দুই বছর কার্যক্রম চলার পর শিক্ষক না থাকায় বন্ধ হয়ে যায় পাঠদান। “শরীয়তপুরে স্কুল চার বছর বন্ধ” শিরোনামে গতকাল যমুনা টেলিভিশনে সংবাদ প্রচারিত হলে টনক নড়ে প্রশাসনের।









Leave a reply