মার্কিন সামরিক ঘাঁটি এবং সৌদি নৌ ও বিমানবন্দরে হামলা চালাতে চেয়েছিল ইরান

|

চার মাস আগে সৌদি আরবে সামরিক অভিযান চালাতে যাচ্ছিল ইরান। রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর সামরিক অভিযান থেকে সরে এসে দেশটির দ্বিতীয় বৃহৎ তেল স্থাপনায় ভয়াবহ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।

হামলার আগে তেহরানে দেশটির এলিট ফোর্স রেভুলেশনারি গার্ডের প্রধান মেজর জেনারেল হোসেন সালামিসহ শীর্ষ কর্মকর্তারা গত মে মাস থেকে অন্তত ৫টি গোপন বৈঠকে বসেছিলেন এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য।

এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স। বার্তা সংস্থাটি আরও জানায়, প্রাথমিক পরিকল্পনায় ছিল মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন কোন একটি সামরিক ঘাঁটি এবং সৌদি আরবের একটি নৌ ও একটি বিমানবন্দর। পরে অনেক চিন্তা ভাবনা করে তা পরিবর্তন করা হয়। নতুন লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণ করা হয় সৌদি কোম্পানি আরামকো।

রিপোর্টে আরও বলা হয়, পরমাণু সমোঝতা থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে যাওয়ায় এবং নতুন করে একের পর এক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় প্রতিশোধ নিতে তার মিত্রদেশ সৌদিতে হামলা চালাতে চেয়েছে ইসলামিক এ প্রজাতন্ত্রটি।

কেবলমাত্র সৌদি আরব নয়, মধ্যপ্রচ্যে মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতেও হামলার পরিকল্পনা ছিল ইরানের।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত এসব চিন্তা থেকে সড়ে এসে সৌদির বৃহৎ তেল স্থাপনায় হামলা চালায় বলে মার্কিন প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।









Leave a reply