ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে শিশুর লিঙ্গ জানা নিষিদ্ধ ঘোষণা

|

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে আল্ট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে শিশুর লিঙ্গ জানা নিষিদ্ধ করেছে সিভিল সার্জন কার্যালয়। বৃহস্প্রতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহ আলম এই তথ্য জানিয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. শাহ আলম যমুনা টেলিভিশনকে জানান, মা ও নবজাতকের স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক একটি সভায় বেশ কিছু সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ওই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে শিশুর লিঙ্গ জানা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এখন থেকে কোনো হাসপাতালে আল্ট্রাসনোগ্রাফির মাধ্যমে শিশুর লিঙ্গ জানানো যাবে না। এ জন্য চিকিৎসকসহ জেলার সকল হাসপাতালে চিঠি দেয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২৪ নভেম্বর জেলা সদর হাসপাতালে জন্ম নেয়া এক নবজাতককে ঘিরে ধুম্রজাল তৈরি হয়। ওইদিন দুপুরে হাসপাতালে সিজারিয়ান অস্ত্রোপচারের মাধ্যেমে তিন দম্পতি সন্তান জন্ম দেন। এরমধ্যে পৌরশহরের পাইকপাড়া এলাকার দিপ্তী রাণী দাস দাবি করেন তিনি ছেলে সন্তান জন্ম দিয়েছেন। তিনি জানান, মেয়ে শিশুটি তার নয় অপর প্রসূতি তামান্নার কোলে তুলে দেয়া ছেলে শিশুটি তার। এর কারণ হিসেবে দিপ্তী বলেন, একাধিকবার আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে তার গর্ভে ছেলে শিশু রয়েছে বলে চিকিৎসকরা তাকে জানিয়েছিলেন। পরে এ নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে বাকবিতণ্ডা হয়। কর্তৃপক্ষ এই পরিবারকে তাদের আলট্রাসনোগ্রাফির কাগজ দেখাতে বলেন এবং জানানো হয় প্রয়োজন হলে ডিএনএ টেস্ট করা হবে। পরে পরিবারটি কন্যা শিশু নিয়ে হাসপাতাল থেকে রিলিজ নেয়।









Leave a reply