শর্তসাপেক্ষে জামিন পেলেন ব্যারিস্টার কায়সার কামাল

|

শর্তসাপেক্ষে জামিন পেয়েছেন বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল। প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় তাকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বুধবার বিচারপতি মো. হাবিবুল গনি ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ জামিন আদেশ দেন। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন ও ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল।

পরে ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল জানান, মামলাটি যেহেতু দুজন আইনজীবীর মধ্যকার ব্যাপার। দুজনই সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সদস্য। সুতরাং তাদের মধ্যে এই ভুল বোঝাবুঝির অবসান হওয়া দরকার। বাদীর যে অভিযোগ তা নিষ্পত্তি করার জন্য সুপ্রিমকোর্টের সিনিয়র আইনজীবীরা হস্তক্ষেপ করবেন এমনটি প্রত্যাশা করেছেন আদালত।

আদালত বলেছেন, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল এ মর্মে অঙ্গীকার দেবেন যে, যতই তাদের পূর্বে ভালো বন্ধুত্ব থাকুক, পারিবারিক সম্পর্ক থাকুক না কেন, তার (ব্যারিস্টার আতিক) পরিবারের কোনো বিষয়ের মধ্যে কায়সার কামাল আর কোনো রকম ইন্টারফেয়ার করবেন না। এটা জেল সুপারের মাধ্যমে সিএমএম আদালতে দেবেন।

পরে আদালত তাকে ছয় মাসের জামিন দেন। একই সঙ্গে তাকে কেন জামিন দেয়া হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করেন।

ব্যারিস্টার আতিকুর রহমান নামে তারই এক কনিষ্ঠ আইনজীবীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ৪ ডিসেম্বর রাতে কায়সার কামালকে আটক করে কলাবাগান থানা পুলিশ। তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ৪২০ ধারায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়। মামলায় কায়সার কামালকে আদালতে হাজির করে তিনদিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কলাবাগান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আওলাদা হোসেন। পরে আদালত তাকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন।

মামলার অভিযোগ অনুযায়ী, আতিকুর রহমানের অনুমতি ছাড়া তার স্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ, গাড়িতে নিয়ে ঘোরা তথা সম্পর্ক বজায় রাখেন কায়সার কামাল। এতে সংসার জীবনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন মর্মে কায়সার কামালের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ আনেন আতিকুর রহমান। এরপর থেকে কারাগারে আছেন কায়সার কামাল।









Leave a reply