অস্ত্র উঁচিয়ে ঢাবি শিক্ষার্থীদেরকে হুমকি, ব্যবসায়ীকে গণপিটুনি

|

ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে অস্ত্র উঁচিয়ে হুমকি দিয়েছেন এক ব্যবসায়ী। এরপর শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন তিনি।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে ভোটের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে বিক্ষোভ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময়, অস্ত্র বের করে শিক্ষার্থীদের হুমকি দেন তিনি। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এর প্রতিবাদ করেন। এক পর্যায়ে তাকে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। আটককৃত ব্যক্তি জনশক্তি রপ্তানির ব্যবসা করেন। তার বাড়ি কুমিল্লায়। অস্ত্রের লাইসেন্স আছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এর আগে, সরস্বতী পূজার দিনে নির্বাচন না করার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের শিক্ষার্থীসহ সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীরা রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। সেখান থেকে নির্বাচন কমিশন ঘেরাও করতে পদযাত্রা শুরু করে তারা। পুলিশের বাধার মুখে তারা রাস্তা অবরোধ করো শ্লোগান দিতে থাকেন। এসময় সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

উল্লেখ্য, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন সরস্বতী পূজার দিনে পড়ায় তারিখ পরিবর্তন চেয়ে হাইকোর্ট রিট করা হয়েছিল। মঙ্গলবার সেটি খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। ফলে ৩০ জানুয়ারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে কোনো বাধা নেই।

গত ২২শে ডিসেম্বর প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করার তারিখ নির্ধারণ করা হয় ৩০শে জানুয়ারি। তফসিল ঘোষণার পর থেকে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে নির্বাচন পেছানোর দাবি জানানো হয়। এ বিষয়ে তারা নির্বাচন কমিশনকেও চিঠি দিয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের বক্তব্য, সরকারি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ভোটের তারিখ ৩০শে জানুয়ারি নির্ধারণ করেছে ইসি। ২৯শে জানুয়ারি ঐচ্ছিক ছুটি। ৩১ শে জানুয়ারি শুক্রবার। ২ ফেব্রুয়ারি থেকে এসএসসি পরীক্ষা শুরু। সবদিক বিবেচনা করেই ৩০ জানুয়ারি ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়।









Leave a reply