প্রাথমিকে কমেছে পাশের হার, জিপিএ ফাইভ

|

জীবনের প্রথম পাবলিক পরীক্ষার সাফল্যে উচ্ছ্বসিত ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। পিইসির ফল পেয়ে তাই বাঁধভাঙা উল্লাস তাদের। এবার  পাসের হার ৯৫ দশমিক ১৮। জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ২ লাখ ৬২ হাজার ৬০৯ জন। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের আশা ভালো ফল আর মানসম্মত শিক্ষায় এগিয়ে যাবে তাদের জীবন।

প্রতিযোগিতামূলক সময়ে পরীক্ষা এখন এক লড়াইয়ের নাম। শিক্ষাজীবনের প্রথম সেই লড়াইয়ে জয়ী বীরদের জয়ধ্বনিতে মুখর ছিল সারাদেশের স্কুলগুলো। শনিবার সকালে দেশের বেশির ভাগ স্কুলেই ছিল প্রায় একই চিত্র। লেখাপড়ার অতিরিক্ত চাপের অভিযোগ থাকলেও সব অভিযোগ দূরে সরিয়ে কাঙ্ক্ষিত ফলাফলের হাসি শিক্ষার্থীদের মুখে।

দুপুরের পর থেকেই স্কুলগুলোতে আসতে থাকে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা। সন্তানের ফলাফল জানতে টাঙানো রেজাল্ট শিটে হুমড়ি খেয়ে পড়েন অভিভাবকেরা। যাদের সেই ধৈয্য নেই তারা ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে ফলাফল জানার চেষ্টা করেন।

চলতি বছর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনীতে ৩০ লাখ ৯৬ হাজার ৭৫ জন অংশ নেয়; যার মাঝে উত্তীর্ণ হয়েছে ২৫ লাখ ৬৬ হাজার ২৭১ জন। আর বহুল কাঙ্ক্ষিত জিপিএ পেয়েছে ২ লাখ ৬২ হাজার ৬০৯ জন। তবে, এবার সারাদেশের স্কুলগুলোতে পিইসি পরীক্ষার ফলাফলে পাশের হার কমেছে। কমেছে জিপিএ ফাইভ প্রাপ্তর সংখ্যাও।

শুধুমাত্র, ঢাকা বোর্ডে গতবারের তুলনায় জিপিএ ফাইভের সংখ্যা কমেছে প্রায় ৬৮ হাজার! গতবার যেখানে সারাদেশে জিপিএ ফাইভের সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৮১ হাজার ৮৯৮ এবার সেটি কমে দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার ৫৪৮-এ।

অন্যদিকে, পাশের হার গত বছর ছিল ৯৮.৫১ ভাগ, এবার তা কমে দাঁড়িয়েছে ৯৫.১৮ ভাগে।

পাসের হার কেনো কমলো তা খতিয়ে দেখার কথা বললেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। তিনি বলেন, পাশের হার কেন কমেছে তা গবেষণা করে দেখা হবে।

যমুনা অনলাইন: টিএফ

 









Leave a reply