রাওয়ালপিন্ডি টেস্টকে সংহতির ম্যাচ হিসেবে দেখছে পাকিস্তান

|

বাংলাদেশের বিপক্ষে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট সিরিজে স্বাগতিক ও দল হিসেবে পাকিস্তান নিজেদের দক্ষতা এবং যোগ্যতাকে সৃমদ্ধ করতে সক্ষম হবে বলে আশা করছেন অধিনায়ক আজহার আলি। শুক্রবার শুরু হচ্ছে সিরিজের প্রথম টেস্ট।

দীর্ঘ ১০ বছর নির্বাসিত থাকার পর শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে দুই মাস আগে পাকিস্তান নিজ দেশে টেস্ট আয়োজনে সক্ষম হয়েছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে এ টেস্ট সূচি তাদের সক্ষমতা অর্জনের দ্বিতীয় ধাপ। ২০০৯ সালের মার্চে লাহোরে শ্রীলংকার টিম বাসে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর রক্তক্ষয়ী হামলার পর দেশটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিষিদ্ধ হয়। ফলে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হোম ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার করতে বাধ্য হয় পাক ব্রিগেড।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার পর ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত কেবল সীমিত ওভারের ক্রিকেট আয়োজনে সক্ষম হয়েছিল পাকিস্তান। তবে এখনও দীর্ঘ সময় ধরে সেখানে অবস্থান করতে রাজি নয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তিন ধাপে সিরিজ খেলার বিষয়ে সম্মতি নিয়েই দেশটি সফরে গেছেন টাইগাররা। এরই ধারাবাহিকতায় গত মাসে কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেই দেশে ফেরেন তারা।

প্রথম এ টেস্টে অংশগ্রহণ শেষেও দেশে ফিরে আসবে বাংলাদেশ। এর পর একমাত্র ওয়ানডে এবং দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে ফের পাকিস্তান যাবে তারা। আগামী ৩ এপ্রিল করাচিতে অনুষ্ঠিত হবে ওয়ানডে ম্যাচটি। এরপর ৫ থেকে ৯ এপ্রিল একই ভেন্যুতে হবে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট।

আজহার বলেন, খণ্ডিত এ সিরিজটি পাকিস্তানকে টেস্ট আয়োজক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সহায়তা করবে। এটি সম্ভব করার কৃতিত্ব উভয় দেশের ক্রিকেট বোর্ডের। তবে সিরিজটি খণ্ডিত না হলে বেশি ভালো হতো। অবশ্য বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচ হিসেবে এ টেস্টের প্রতি আমাদের পুরো মনোযোগ রয়েছে।

চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট তালিকায় বর্তমানে চতুর্থ স্থানে রয়েছে পাকিস্তান। টেস্ট খেলুড়ে শীর্ষ ৯ দেশের এ তালিকার শীর্ষে রয়েছে ভারত। এখন পর্যন্ত সর্বাধিক ৩৬০ পয়েন্ট অর্জন করেছে তারা। ২৯৬ পয়েন্ট নিয়ে অস্ট্রেলিয়া দ্বিতীয় এবং ১৪৬ পয়েন্ট নিয়ে ইংল্যান্ড তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

শীর্ষ পয়েন্ট সংগ্রহকারী দুটি দল ২০২১ সালের জুনে চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে খেলবে। আজহার বলেন, এ ম্যাচ আয়োজনের মাধ্যমে আমরা বিশ্ববাসীকে বার্তা দিতে সক্ষম হব যে, পাকিস্তান এখন নিরাপদ। টেস্টে বাংলাদেশ স্কোয়াডে নেই সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। সাকিব স্পট ফিক্সিং মামলায় নিষিদ্ধ এবং মুশফিক নিরাপত্তাহীনতার আশঙ্কায় নিজেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক বলেন, ‘সেরা দুই খেলোয়াড়কে বাইরে রেখে এমন ম্যাচে খেলাটা বেশ কঠিন। তবে এর ফলে তরুণ খেলোয়াড়রা সুযোগ পাবে। আমরা তাদের ভালো ক্রিকেট খেলা দেখার অপেক্ষায় আছি।

এর আগে পাকিস্তানের বিপক্ষে ১০ ম্যাচে অংশ নিয়ে ৯টিতেই পরাজিত হয়েছেন টাইগাররা। বাকি ম্যাচটি ড্র হয়েছে। তবে আশার কথা হচ্ছে নতুন ফর্ম নিয়ে দলে ফিরেছেন ওপেনার তামিম ইকবাল। ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি ট্রিপল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তার সঙ্গে পাকিস্তানের শক্তিশালী বোলিং মোকাবেলায় রয়েছেন অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

ম্যাচে পাকিস্তান বোলিং আক্রমণে যোগ দিচ্ছেন ১৬ বছর বয়সী বিস্ময়কর পেসার নাসিম শাহ। তার পাশাপাশি ব্যাট হাতে ওপেনার আবিদ আলির লক্ষ্য থাকবে আরও একটি সেঞ্চুরি হাঁকানো। যাতে পর পর প্রথম তিন টেস্টে সেঞ্চুরি করার রেকর্ড বইয়ে থাকা ভারতীয় ব্যাটসম্যান আজহার আলির রেকর্ডে ভাগ বসাতে পারেন। ১৯৮৪-৮৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম তিন টেস্টে সেঞ্চুরি করেন আজহার।

তথ্যসূত্র: বাসস।









Leave a reply