আর কতোটা পথ হাঁটলে পরে তাঁর বই বিক্রি হবে?

|

ড. ফয়জুর রহমান আল সিদ্দিক। জীবনের ছিয়াশিটি বসন্ত পার করেছেন। কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেছেন। তবুও এই বয়সে নিজের লেখা একটি বই বিক্রি করার জন্য মেলায় হেঁটে বেড়াচ্ছেন। দুর্বল পায়ে এক স্টল থেকে অন্য স্টলে হাঁটছেন আর বই কেনার অনুরোধ করছেন। এই রকমই একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যেমে। এরপরই অনেকেই বলছেন- আর কতোটা হাঁটলে পরে তার বই বিক্রি হবে?

ফয়জুর রহমান আল্ সিদ্দিক ১৯৩২ খৃষ্টাব্দে ঢাকার নবাবগঞ্জ থানার আগলা ইউনিয়নে অবস্থিত চরমধুচারিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার মাতার নাম উম্মতে রছুল এবং পিতার নাম আব্দুল ওয়াদুদ (সোনা মিয়া)।

তিনি ১৯৫৩ সালে চুড়াইন তাড়িনি বামা উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় হতে ম্যাট্রিক, ১৯৫৬ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ হতে আইএসসি পাশ করেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ১৯৬০ সালে রসায়নে সম্মান শ্রেণিতে বিএসসি এবং ১৯৬১ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে থিসিস গ্রুপে এমএসসি ডিগ্রী লাভ করেন। পরবর্তীকালে ১৯৭০ সালে তিনি ইংল্যান্ডের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন।

১৯৬১ থেকে ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত তিনি প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধীনে অ্যাসিস্ট্যান্ট কেমিক্যাল একজামিনার এবং পরবর্তী সময় ঢাকা ইঞ্জিনিয়ারিং বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন শাস্ত্রের লেকচারার হিসেবে কাজ করেন।

১৯৬৩ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত (প্রথমে তদানীন্তন পাকিস্থান এবং পরবর্তীকালে বাংলাদেশ) পরমাণু শক্তি কমিশনের বিভিন্ন পদে চাকরি করে অবশেষে ১৯৯২ সালে প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং ইন্সটিটিউট অব নিউক্লিয়ার সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলোজির পরিচালক হিসেবে কর্মরত থাকাকালীন অবস্থায় চাকুরী হতে অবসর গ্রহণ করেন।

শিক্ষা ও চাকরি জীবনে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ বৎসর, তেহরানের সেন্টো ইন্সটিটিউট অব নিউক্লিয়ার সায়েন্সে পৌণে দুই বছর এবং ইংল্যান্ডের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাড়ে চার বৎসর পোস্ট গ্রাজুয়েট গবেষণায় এবং সুইজারল্যান্ডের ফেডারেল পরমাণু চুল্লি গবেষণা ইন্সটিটিউটে ১৩ মাস যাবৎ পোস্ট ডক্টরাল গবেষণায় নিয়োজিত ছিলেন। তার চাকরি জীবনে বাকি দিনগুলিতে পরমাণু শক্তি কমিশনের লাহোর, ঢাকা ও সাভারস্থ গবেষণাগারে নিউক্লিয়ার বিজ্ঞানের শান্তিপূর্ন ব্যবহারের গবেষণায় নিযুক্ত ছিলেন।

তার বৈজ্ঞানিক গবেষণার ফলাফলস্বরুপ ২৩টি সন্দর্ভ বিভিন্ন দেশীয় এবং বৈদেশিক বিজ্ঞান বিষয়ক জার্নালে প্রবন্ধ আকারে প্রকাশিত হয়েছে।

ড. ফয়জুর রহমান আল সিদ্দিক প্রণীত ‘প্লাস্টিক’ ও অনূদিত ‘ইলেকট্রিসিটি শেখার সহজ উপায়’ নামক দুটি পুস্তক প্রকাশিত হয়েছে। তিনি বাংলা একাডেমি এবং রসায়ন সমিতির জীবন সদস্য এবং বাংলাদেশ বিজ্ঞান উন্নয়ন সমিতির সাধারণ সদস্য।

তার ‘বাঙালির জয়, বাঙালির ব্যর্থতা’ বইটি বিক্রির জন্য মেলায় তাঁকে হাঁটতে দেখা যায়।









Leave a reply