হাথুরুসিংহেকে মিস করছেন পাপন!

|

দেশের ক্রীড়াঙ্গনের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সাফল্য অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয়। স্বভাবতই বিশ্বকাপ জয়ের আনন্দে ভাসছে গোটা দেশ। বাংলাদেশের যুবাদের বন্দনার মাঝেও জাতীয় দলের পারফরম্যান্সের হতাশ দেশের ক্রীড়ামোদীরা। পাকিস্তানের বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত রাওয়ালপিন্ডি টেস্টে ইনিংস ও ৪৪ রানে হেরেছেন মুমিনুল বাহিনী। এর আগে, টি-টোয়েন্টিতে বলার মতো কিছু করতে পারেনি টাইগাররা। মূলত, ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের পর থেকেই দলের এই বেহাল দশা।

এমন অবস্থায় বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও চিন্তিত। সাবেক কোচ চান্দিকা হাথুরুসিংহেকে মিস করছেন তিনি!

বুধবার বিশ্বজয়ী যুবাদের ব্যাপক গণসংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এ উৎসবের মাঝেও হতাশা গোপন করতে পারেননি নাজমুল হাসান পাপন। বলেন, হাথুরুসিংহে থাকলে জাতীয় দলের এমন অবস্থা হতো না। এখনও তাকে মিস করি আমি। ও দায়িত্ব ছাড়ার পর দুর্দশা বাড়ছেই। গেল বিশ্বকাপের পর ব্যাপক ছন্দপতন ঘটেছে। যার যা ইচ্ছে, সে তা করছে। সাকিববিহীন দলে চোখে পড়ার মতো কোনো পারফরম্যান্স আমরা পাইনি। বিশ্বকাপে সে একাই দেশকে টেনেছে। এর পর তো যাচ্ছেতাই অবস্থা। এটিকে আমার বাংলাদেশ দলই মনে হয় না। এভাবে চলতে দেয়া যাবে না।

হাথুরুসিংহের অধীনে ২০১৫ সালে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলে বাংলাদেশ। পরে ঘরের মাঠে ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকাকে ওয়ানডে সিরিজ হারায় টাইগাররা। তার অধীনেই ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল খেলেন বাংলাদেশ। সে বছরের নভেম্বরে বাংলাদেশের দায়িত্ব ছেড়ে দেন হাথুরু। তিনি চলে যাওয়ার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি তামিম-মুশফিকরা।

পরবর্তীতে কোচ স্টিভ রোডসের অধীনে ২০১৯ বিশ্বকাপে তিনটি ম্যাচ জিতলেও সেমিফাইনালে খেলতে পারেননি বাংলাদেশ। দলের শৃঙ্খলা নিয়েও ওঠে প্রশ্ন। এরপরই টাইগারদের ছেড়ে যায় রোডস। এরপর অনেক খুঁজে রাসেল ডমিঙ্গোকে কোচের পদে বসায় বিসিবি। তবে এখন পর্যন্ত বড় কোনো সাফল্য এনে দিতে পারেননি এই দক্ষিণ দল। হারের বৃত্তেই ঘুরপাক খাচ্ছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে টেস্টে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হার, ভারতের মাটিতে ভরাডুবি এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে ইনিংস হার যেন অশনি সংকেত হয়েই এসেছে।

তবে কী হাথুরুসিংহেকে ফিরিয়ে আনার কথা ভাবছে বোর্ড। তেমন কিছু কেউ না বললেও হাথুরুকে যে মিস করছেন বোর্ড সভাপতি সেটি নিয়ে কোনো সংশয় নেই। আপাতত বেকার হাথুরুও অবশ্য বাংলাদেশ ছেড়ে সুবিধা করতে পারেননি। শ্রীলঙ্কা জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়ে ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। ফলে চাকরিচ্যুত হতে হয়েছে তাকে।









Leave a reply