মানবিক কারণে নামতে দিয়েছি; এটাই শেষ ফ্লাইট: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

|

মানবিক কারণে সোমবার সন্ধ্যায় কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে ইউরোপ থেকে দেশে আসা যাত্রীদের গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ। এরপর, যুক্তরাজ্য ভিন্ন অন্য কোনো ইউরোপীয় দেশ থেকে ফেরার সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

যমুনা নিউজকে তিনি বলেন, আমি গতকাল রাত ১২.০১ মিনিটে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে বলেছিলাম। বিভিন্ন কারণে আজ দুপুর ১২.০১ মিনিট পর্যন্ত সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। ফ্লাইটটা ওই সময়ে রওনা দিয়ে দিচ্ছিল। তাদের কাছে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বিভিন্ন ‘ব্যুরোক্রেটিক’ (আমলাতান্ত্রিক) কারণে পৌঁছেনি। আমরা মানবিক কারণে তাদের গ্রহণ করেছি। এই শর্তে যে যারা আসবেন তারা আমাদের কোয়ারেন্টাইন মেনে চলবেন।

এরপর আর যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের অন্য দেশে থেকে কাউকে গ্রহণ করা হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, আজকে মানবিক কারণে গ্রহণ করা হয়েছে। আগামীতে আমাদের অর্ডারটি আমরা অনুসরণ করবো। এটিই যুক্তরাজ্য ভিন্ন ইউরোপের দেশগুলো থেকে শেষ ফ্লাইট। এরপর আসলে পরে ফেরত যেতে হবে।

সম্প্রতি, দেশে ফেরা অনেক প্রবাসী কোয়ারেন্টাইনে যেতে চায়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের অনেক প্রবাসী যারা আসছেন তারা কোয়ারেন্টাইন গ্রহণ করেন না, যেতেই রাজি না। অনেকেই আমাদের আইনকানুন মানতে রাজি না। পরশু আশকোনা ক্যাম্পে একটি ‘অনাকাঙ্ক্ষিত’ ঘটনা ঘটেছে। যারা আসছেন ইতালি থেকে এসেছেন, তারা হুট করে এসেছেন। ইতালিতে কেউ রাস্তায় উঠলে ফাইন দিতে হয় এবং ৩ মাসের জেল হচ্ছে। তারা এখানে আসার কোয়ারেন্টাইনের কথা বলায় রাগ করে ফেললেন। আমাদের সহকর্মী, ডাক্তার, নার্সদের তারা অপদস্থ করেছেন, গালিগালাজ করেছেন। আমাদের সামর্থ নেই ওনাদের পাঁচতারা হোটেলে জায়গা দেয়ার। কিছু সংখ্যক প্রবাসী যারা বিদেশে আইন মেনে চলেন, এখানে এসে উগ্র হয়ে ওঠেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আজকে যে ৯২ জন এসেছেন কাতার এয়ারওয়েজে, অনেকের মত ছিল তাদের ফেরত দেয়া। কিন্তু আমরা মানবিক কারণে তাদের গ্রহণ করেছি। এই শর্তে যে আমাদের দেশের আইন মেনে চলতে হবে। গতকালও যেসব প্রবাসীরা এসেছেন তারা যেই হাসপাতালে নেয়া হয়েছে সেখানে দরজা ভেঙে ফেলেছেন। তালা ভেঙে, কলাপসিবল গেট ভেঙে ফেলেছেন। সবার বুঝতে হবে, এখন পরিবেশটা স্বাভাবিক পরিবেশ না। বিশেষ একটা অবস্থা।

উল্লেখ্য, সোমবার সন্ধ্যায় কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ইতালি-জার্মানিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে ৯২ বাংলাদেশি দেশে ফিরেছেন। আশকোনা হজ ক্যাম্পে তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে।









Leave a reply