জনগণের সুরক্ষায় ছুটি বাড়ানো হবে: প্রধানমন্ত্রী

|

সরকারের আন্তরিক চেষ্টা ও প্রত্যেকে নিজ নিজ জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করায় করোনাভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ করা গেছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া জনগণের সুরক্ষায় সরকারি ছুটি সীমিত আকারে বাড়ানো হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

সকালে গণভবন থেকে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সাথে করোনা সংক্রমণ রোধে ভিডিও কনফারেন্সে এই কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। যেহেতু করোনা এখনো পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয়নি তাই সকলকে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি। এছাড়া করোনা প্রতিরোধে পহেলা বৈশাখের নববর্ষের অনুষ্ঠান না করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। জনগণের সুবিধার্তে সীমিত পরিসরে গণপরিবহন চলাচলের ব্যবস্থা রাখা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিতে জনসমাগম হয় এমন কর্মসূচি সরকার স্থগিত করেছে। চিকিৎসা দিতে সুনির্দিষ্ট করে হাসপাতাল ও ডাক্তারদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। করোনার সংক্রমণ রোধে সরকার ১০ দিনের সরকারি ছুটি প্রদান করে। তবে এরফলে যাতে দেশের মানুষের কোন ক্ষতি না হয় তার জন্য কাঁচাবাজার ও ব্যাংক খোলা রাখা হয়েছে।

দুঃসময়ের সুযোগ নিয়ে কেউ যাতে কোন অপকর্ম না করতে পারে সেদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, খেটে খাওয়া মানুষের কর্মক্ষেত্র নষ্ট হয়েছে; তাই তাদের খাদ্য নিশ্চিত করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, গুজব শুনবেন না। গুজবে কান দিবেন না। গুজবে বিচলিত হবেন না। গুজব প্রচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।









Leave a reply