আল আক্বসার দায়িত্ব সৌদি আরবকে দেয়ার কথা বললেন ইসরায়েলি এমপি

|

জেরুজালেমে অবস্থিত আল আক্বসা মসজিদের দায়িত্ব সৌদি আরবকে দেয়ার কথা বললেন ইসরায়েলি পার্লামেন্টের বিরোধী দলীয় নেতা আইজ্যাক হারজোগ। সৌদি অর্থায়নে পরিচালিত পত্রিকা ইলাফ’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ইসরায়েলি এই এমপি বলেন, জেরুজালেম ইস্যুতে সৌদি আরব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

‘জেরুজালেম এবং এখানকার পবিত্র স্থাপনাগুলো নিয়ে আলোচনায় যদি আমরা কোনো সমঝোতায় পৌঁছি, তাহলে সৌদি আরবকে অবশ্যই আল আক্বসার রক্ষনাবেক্ষণের দায়িত্ব নেয়া উচিত। কারণ মক্কা-মদিনার মতো পবিত্র স্থান রক্ষনাবেক্ষণে তাদের অভিজ্ঞতা আছে’, বলেন হারজোগ।

ইসরায়েলি লেবার পার্টির এই নেতা আরও বলেন, ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকট সমাধানে রিয়াদ আরও জোরালো ভূমিকা নিতে পারে। এ বিষয়ে সৌদিকে আমাদের সহায়তা করা উচিত।

একইসাথে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের ভূয়সী প্রশংসা করেন হারজোগ। বিন সালমানকে ‘এক মহান বিপ্লবী’ আখ্যা দিয়ে বলেন, ‘ক্রাউন প্রিন্সের নেয়া বিভিন্ন সিদ্ধান্তকে আমি সম্মান করি এবং তাকে মধ্যপ্রাচ্যের একজন মহান বিপ্লবী বলে মনে করি।’

প্রসঙ্গত, আল আক্বসার রক্ষনাবেক্ষণে বর্তমানে রয়েছে প্রতিবেশি দেশ জর্দান। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার বিরুদ্ধে জর্দানের বাদশাহ আব্দুল্লাহ সক্রিয় ভূমিকা নেন। এই ইস্যুতে আহ্বান করা ওআইসি সম্মলনে তিনি ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্রে কড়া সমালোচনা করেন। সম্মেলনের আগে রিয়াদে ডেকে এনে আব্দুল্লাহকে সম্মেলনে যোগ না দেয়ার পরামর্শ দেন সৌদি ক্রাউন প্রিন্স বিন সালমান। এরপর রিয়াদ-আম্মান সম্পর্কে উত্তেজনা বিরাজ করছে। সর্বশেষ মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক একাধিক পত্রিকা দাবি করেছে, সৌদি প্রশাসনের সাথে গোপন যোগাযোগের অভিযোগে তিন ভাইকে সেনাবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছেন জর্দানের বাদশাহ।

এমন পরিস্থিতিতে ইসরায়েলি নেতার আল আক্বসা নিয়ে বক্তব্য জর্দানের প্রতি সরাসরি চ্যালেঞ্জ বলে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা।









Leave a reply