নন-এমপিও কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের মানবেতর জীবন

|

দু:সহ সময় কাটছে বেসরকারি নন-এমপিও কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের। বেতন-ভাতা বন্ধ থাকায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন অনেকেই। একই অবস্থা কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষকদেরও। করোনা দুর্যোগে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ার শঙ্কায় শিক্ষকরা।

এমন বাস্তবতায় এককালীন সরকারি অনুদান চেয়েছেন ভুক্তভোগীরা। তবে নীতিনির্ধারকরা বলছেন, অনুমোদন ছাড়া প্রতিষ্ঠানের অনুদান পাওয়ার সুযোগ কম।

অলিগলি কিংবা গ্রামগঞ্জের ১২ লাখ কিন্ডারগার্টেনের বেশিরভাগেরই অনুমোদন নেই। ট্রেড লাইসেন্স দিয়ে ব্যবসায়িক ভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো পরিচালিত হয়। শিক্ষার্থীদের বেতনের টাকা দিয়ে চলে ছয় লাখ শিক্ষকের বেতন। করোনা পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকেরা দাবি আদায়ে মানববন্ধন করেছেন, চেয়েছেন ৫শ কোটি টাকার সরকারি অনুদান।

কষ্টে আছেন বেসরকারি কলেজের নন এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারীও। প্রধানমন্ত্রীর কাছে ১২শ কোটি টাকার অনুদান চেয়েছেন তাঁরা।

করোনা দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের প্রতি সরকারের উদার ভূমিকা রাখার দাবি ভুক্তভোগীদের।









Leave a reply