লেজেন্ডদের শিখাবো, কীভাবে ২০২০ সালে মিউজিক করতে হয়: নোবেলের স্ট্যাটাস ঘিরে বিতর্ক

|

ভারতের একটি সংগীত বিষয়ক রিয়েলিটি শো-তে অংশ নিয়ে রাতারাতি তারকাখ্যাতি পেয়ে যান বাংলাদেশের উঠতি সঙ্গীতশিল্পী মাঈনুল আহসান নোবেল। তার গায়কীর প্রশংসায় মেতে উঠেন দুই বাংলার দর্শক। ফ্যান-ফলোয়ার সবই জুটেছে রাতারাতি।  তবে নানা বিতর্কিত মন্তব্য ও স্ক্যান্ডালে জড়িয়ে নিন্দিত হতেও সময় নেননি নোবেল। বিশেষ করে জাতীয় সংগীত ও দেশের বেশ কয়েকজন সিনিয়র শিল্পীকে নিয়ে তার মন্তব্য ভালোভাবে নেয়নি সংগীতপ্রেমীরা।

এবার বিতর্কিত কিছু স্ট্যাটাস দেখা গেছে নোবেলের ভ্যারিফায়েড ফেসবুক পেইজে। দেশের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিকে হেয় করে স্ট্যাটাস দেয়া হয়েছে সেখানে। মঙ্গলবার নোবেলের বরাতে দেয়া একটি স্ট্যাটাসে দাবি করা হয়েছে, “বাংলাদেশে গত ১০ বছরে ভালো করে কেউ মিউজিকই করেনি। দাঁড়াও তোমার লেজেন্ডদের না হয় আমিই শিখাবো, কিভাবে ২০২০ সালে মিউজিক করতে হয়।”

স্ট্যাটাসে আরও বলা হয়েছে, “দু-বছর আগে জন্ম নিয়েছি আপনাদের ভালবাসা নিয়ে। দু-বছরে ফ্লপ/হিট গানের সংখ্যা দুই। তোমার মনের ভেতর – অনুপম রায় (National Award winner) ও আগুনপাখি – শান্তনু মৈত্র (National Award winner)। তোমাদের লেজেন্ড গত দশ বছর ধরে কয়টা ফ্লপ অথবা হিট রিলিজ করেছে কমেন্টস্ সেকশানে জানাও।”

লেজেন্ডদের শিখাবো, কীভাবে ২০২০ সালে মিউজিক করতে হয়: নোবেলের স্ট্যাটাস ঘিরে বিতর্ক
নোবেলের এই স্ট্যাটাস ঘিরে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।


এর আগে আরেকটি স্ট্যাটাসে বলা হয়েছে, “গান রিলিজের আগে প্রায় ১০ হাজার গাধার প্যান্ট, থুক্কু ব্যান খোলা হবে। যাতে করে গাধাগুলো মানুষ হবার দ্বিতীয় সুযোগ পায়। বাই দা রাস্তা (way), আজকের পোস্টটা কিন্তু গাধা ধরার ফাঁদ। এই ফাঁদে পা দিলেই শেষ। হা হা হা।”

নোবেলের এমন মন্তব্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল তর্ক-বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই বলছেন, যেসব কিংবদন্তীদের গান কাভার করে নোবেল পরিচিতি পেয়েছেন আজ তাদের অপমান, হেয় করার মধ্য দিয়ে তিনি নিজের নিচু মানসিকতার প্রমাণ দিলেন। কেউ কেউ আবার বলছেন, নোবেলের মুখে এমন কথা মানায় না; তার ফেসবুক পেইজটি হ্যাক হয়ে থাকতে পারে। তবে, এ বিষয়ে জানতে তাৎক্ষণিকভাবে নোবেলের সাথে যোগাযোগ করা যায়নি।









Leave a reply