সাকিববিহীন তামিমের শেষ আড্ডা; দানের প্রসঙ্গে ‘সাইলেন্ট’ থাকলেন মাহমুদউল্লাহ

|

সাকিববিহীন তামিমের শেষ আড্ডা; দানের প্রসঙ্গে 'সাইলেন্ট' থাকলেন মাহমুদউল্লাহ

সাকিববিহীন তামিমের শেষ আড্ডায় দানের প্রসঙ্গে 'সাইলেন্ট' থাকলেন মাহমুদউল্লাহ

নিজের মাঠের তিন সতীর্থকে নিয়ে শেষ ডিজিটাল আড্ডায় মাতলেন তামিম ইকবাল। সেখানে করোনাকালীন নিজেদের নানা উদ্যোগের কথা উঠে এলো মাশরাফী-মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর কথায়। ব্যক্তিগত খুঁনসুঁটি, মজার সব ঘটনার স্মৃতিচারণের মাঝে হয় সিরিয়াস ক্রিকেট আলোচনাও।

শনিবার নির্ধারিত সময়ের ৮ মিনিট দেরিতে শুরু হয় তামিম ইকবালের শেষ ডিজিটাল আড্ডা। সেখানে দেরির কারণ হিসেবে শুরুতেই হাসি ঠাট্টায় মেতে ওঠেন সাকিবহীন ফ্যাবুলাস ফাইভের বাকি চার।

১২ পর্বের শেষ ডিজিটাল আড্ডার মধ্যে এটিতেই সবচে সাবলীল যেন উপস্থাপক তামিম। এ যেন আরেকটি আর্ন্তজাতিক ম্যাচ, হাসি-ঠাট্টা-উত্তেজনা কোনো কিছুরই কমতি নেই।

মাশরাফীর উদ্যোগ, তামিমের বিভিন্ন জনকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়া, মুশফিকের ব্যাটের নিলাম থেকে আসা টাকা দিয়ে দু্স্থ মানুষদের ঈদ উপহার পাঠানো আর সাকিব ফাউন্ডেশনের কাজ নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে আসে মাহমুদউল্লাহর কথাও তবে এখানেও ব্যতিক্রম ছিলেন সাইলেন্ট কিলার মাহমুদউল্লাহ। তামিম তাকে কথার সূত্র ধরে প্রশ্ন করেন, রিয়াদ ভাই আপনাকে কেউ বলে থাকেন বাংলাদেশ দলের সাইলেন্ট কিলার। আপনি এখন নীরবে একটা কাজ করছেন। অনেককেই দান করে যাচ্ছেন, কিন্তু প্রকাশ করছেন না। আপনি আসলে কী করছেন, কাদের সাহায্য করেছেন; একটু কি এ বিষয়ে বলবেন?

এই প্রশ্নের উত্তরে অবশ্য সাইলেন্ট কিলার সাইলেন্টই থাকলেন। শুধু বললেন, আমি আমার সাধ্যমতো কিছু না কিছু করছি। তবে আমি এগুলো গোপনই রাখতে চাই।

সিরিয়াস আলোচনায় উঠে আসে ২০১১ বিশ্বকাপে মাশরাফীর দল থেকে বাদ পড়া সেই কান্না; তবে এর পেছনে বড় এক প্রাপ্তির কথাও বলেন দেশের সর্বকালের সেরা এই পেসার।

জাতীয় দলের ম্যাসেজম্যান সোহেলের কেটলির চা প্রসঙ্গে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে আড্ডা।
কথার পিঠে কথা; আর সেসব কথামালায় উঠে আসে করোনা পরবর্তী দেশ ও বিশ্ব ক্রিকেটের ভবিষ্যত নিয়ে। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে অনন্য উচ্চতায় নেয়ার আকাঙ্ক্ষা জানান তারা।

আর্ন্তজাতিক ক্রিকেটে মুশফিকের ১৫ বছর পুরণ হতে চলেছে সামনে, আর এজন্য তাকে অভিনন্দনও জানানো হয় আড্ডায়।









Leave a reply