ইতিহাস গড়ে প্রথম বেসরকারি রকেটে মহাকাশে গেলেন দুই নভোচারী

|

মহাকাশ যাত্রায় নতুন অধ্যায়ের শুরু হলো যুক্তরাষ্ট্রে। প্রথমবারের মতো সফলভাবে মহাশূন্য নভোচারী পাঠিয়েছে, বেসরকারি কোনো সংস্থা। ফ্লোরিডায় নাসার উৎক্ষেপণকেন্দ্র থেকে শনিবার যাত্রা শুরু করে স্পেসএক্স এর নভোযান ফ্যালকন নাইন। প্রায় এক দশক পর নিজ ভূখণ্ড থেকে, নভোচারী পাঠালো যুক্তরাষ্ট্র। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, মহাশূন্য অভিযানে মার্কিন শ্রেষ্ঠত্ব আরও সুসংহত হলো এর মাধ্যমে।

প্রায় এক দশকের অপেক্ষার অবসান। ফ্লোরিডার কেপ কেনভেরাল থেকে যাত্রা শুরু করলো মহাকাশযান ফ্যালকন-নাইন। বেসরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানের মহাকাশযানে নভোচারী পাঠানোর ঘটনা এই প্রথম।

নাসার স্পেস শাটল বন্ধ হওয়ায় ২০১১ থেকে মহাকাশযাত্রা বন্ধ যুক্তরাষ্ট্রে। আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে, নভোচারী পাঠাতে, দেশটির ভরসা ছিলো রুশ যান ‘সুয়েজ’। মার্কিন প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের সাথে যৌথ উদ্যোগে, ৯ বছর পর নিজ ভূখণ্ড থেকেই উড়লেন নাসার দুই নভোচারী।

আবহাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যেই, শনিবার স্থানীয় সময় বিকাল ৩টা ২২ মিনিটে সফল উৎক্ষেপণ হয় ফ্যালকন নাইনের। ঐতিহাসিক মুহুর্তের সাক্ষী হতে কেনেডি স্পেস সেন্টারে উপস্থিত ছিলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, এটি দৃষ্টিনন্দন দৃশ্য ও দারুন সম্মানের। যা আবারো আমাদেরকে বিশ্বের সেরা বানিয়েছে। এটা শুধু শুরু মাত্র। এরপর আমরা ক্রমানুসারে মঙ্গল ও চাঁদে মহাকাশযান পাঠাবো।

বিলিয়নিয়ার ব্যবসায়ী এলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের মহাকাশযানের যাত্রী অভিজ্ঞ দুই নভোচারী রবার্ট বেনকেন ও ডগলাস হার্লে। উৎক্ষেপণের ৬ মিনিটের মধ্যেই কক্ষপথে প্রবেশ করে, তাদের বহনকারী ড্রাগন ক্যাপসুল।

বেসরকারি নভোযানে, প্রথম উৎক্ষেপনের দৃশ্য দেখতে বাড়তি আগ্রহ ছিলো মার্কিনীদের। অনেকেই ভিড় করেন, ফ্লোরিডার সৈকতে।

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে প্রায় চার মাস অবস্থান করবেন দুই নভোচারী।









Leave a reply