ডিএনসিসি নির্বাচন স্থগিতে আওয়ামী লীগ-বিএনপির ভিন্ন প্রতিক্রিয়া

|

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের আসন্ন উপনির্বাচন স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া নির্দেশের বিষয়ে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও সংসদের বাইরে থাকা বিএনপি। আজ বুধবার দুপুরে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, হাইকোর্টের আদেশ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দলের মনোনীত কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হবে না।

আজ বুধবার দুপুরে ধানমন্ডিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি। ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, নির্বাচন স্থগিতের যে আদেশের পেছনে সরকারের কোনো ভূমিকা নেই। ‘এখানে সরকারের যোগসাজশের কোনো বিষয় নেই। আমরা এই নোংরা পলিটিক্স করি না, এতে বিশ্বাসও করি না’, বলেন আওয়ামী লীগ সম্পাদক।

এদিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভিযোগ করেছেন, নির্বাচনে হেরে যাওয়ার ভয়ে সরকার এ সুযোগ নিয়েছে। এটিকে নির্বাচন কমিশনের চরম ব্যর্থতা বলেও তিনি অভিহিত করেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, সরকার নিজেদের লোক দিয়ে রিট করিয়ে ঢাকা সিটি নির্বাচন স্থগিত করেছে। আজ সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি আরও বলেন, সঠিক বিচার হলে বিএনপি চেয়াপারসনকে কোন ভাবেই সাজা দেয়া সম্ভব হবে না।

অন্যদিকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, এত বড় করপোরেশন পরিচালনায় সমস্যা হবে তাই নির্বাচন প্রয়োজন।

আনিসুল হকের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন এবং দুই সিটিতে নতুন যুক্ত হওয়া ৩৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত আসনের কউন্সিলর নির্বাচনের জন্য গত ৯ জানুয়ারি তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। সেখানে ২৬ ফেব্রুয়ারি ভোটের দিন ঠিক করে নির্বাচনের বিস্তারিত সময়সূচি দেওয়া হয়।

কিন্তু ওই তফসিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের দুই ইউপি চেয়ারম্যানের করা রিট আবেদনে হাইকোর্ট ওই নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করে দেয়। ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে উপনির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ দুই দলই এরই মধ্যে তাদের প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে।

 









Leave a reply