মধ্যরাত থেকে পরীক্ষামূলক লকডাউন পূর্ব রাজাবাজার

|

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের পূর্ব রাজাবাজার এলাকাকে রেড জোন হিসেবে ঘোষণা করে আজ মঙ্গলবার রাত ১২টার পর থেকে পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন করা হবে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার ঘনত্ব বেশি হওয়ায় সংক্রমণ ঠেকাতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

সোমবার দুপুরে মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলার লক্ষ্যে ডিএনসিসি এলাকার জন্য গঠিত কমিটির এক অনলাইন সভায় লকডাউনের সিদ্ধান্ত আসে। এসময় কিভাবে তা বাস্তবায়ন করা হবে সে সিদ্ধান্তও নেয়া হয়।

এদিকে পূর্ব রাজাবাজারের ৮টি প্রবেশ পথের ৭টি কমপক্ষে ১৪ দিন বন্ধ থাকবে; পরিস্থিতি বিবেচনায় ২১ দিন পর্যন্ত লকডাউন করার প্রস্তুতি আছে বলে জানিয়েছেন তেজগাঁও জোনের ডিসি বিপ্লব বিজয় তালুকদার।

এরইমধ্যেই মানুষের মধ্যে সচেতনতার অংশ হিসেবে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। এলাকাবাসীর বেশিরভাগই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করছেন। তবে, লকডাউন নিয়ে বাসিন্দাদের মধ্যে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অনেকেই সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক ভাবে দেখলেও খেটে খাওয়া মানুষরা বিপাকে পড়ার শঙ্কা প্রকাশ করছেন। বলছেন, সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে সঠিকভাবে কড়াকড়ি আরোপ করা হলে তা সুফল বয়ে আনবে। সেইসাথে নিশ্চিত করতে হবে দরিদ্র মানুষদের খাবার জোগানের বিষয়টি।

এদিকে পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় একটি মাত্র প্রবেশ ও বাহির হওয়ার পথ (গ্রিন রোডে আইবিএ হোস্টেলের পাশে) খোলা থাকবে। লকডাউন চলাকালে সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। জনগণের চলাচল অত্যন্ত সীমিত রাখা হবে। লকডাউন চলাকালে পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় বসবাসরত লোকজন বাইরে যেতে পারবেন না এবং বাইরের লোকজন ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেন না বলে অনলাইন সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ওই সভা থেকে জানানো হয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য ও চিকিৎসা সামগ্রী অনলাইনের মাধ্যমে ক্রয় করা যাবে যা বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে। এটুআই ও ইক্যাব যৌথভাবে এটি পরিচালনা করবে। হোম ডেলিভারির জন্য ইতোমধ্যে একদল প্রশিক্ষিত কর্মীবাহিনী তৈরি করা হয়েছে।

যাদের অনলাইন সুবিধা নেই, নগদ অর্থে খাদ্যসামগ্রী ক্রয় করতে চান তাদের জন্য দুই-একটি শাক-সব্জি, মাছ-মাংসের ভ্যান, ভ্যানচালক ও পণ্যসামগ্রী সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে ভিতরে প্রবেশ করানো হবে।

ডিএনসিসির ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান ইরান পূর্ব রাজাবাজার এলাকার কর্মহীন, অসহায় ও দুঃস্থ মানুষের একটি তালিকা প্রণয়ন করছেন। তালিকা অনুযায়ী তাদেরকে ডিএনসিসি থেকে ত্রাণসামগ্রী সরবরাহ করা হবে।

এই এলাকার অসুস্থ রোগীদের জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক টেলিমেডিসিন সার্ভিস চালু করা হবে। গুরুতর রোগীদের জন্য অ্যাম্বুলেন্স ঢুকতে পারবে। এছাড়া জরুরি সেবা যেমন বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ইত্যাদি প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মীগণ লকডাউন এলাকায় প্রবেশ করতে পারবেন।

লকডাউন যথাযথভাবে পালিত হওয়ার লক্ষ্যে ঐ এলাকায় পুলিশের টহল থাকবে। এছাড়া মোবাইল কোর্টও পরিচালিত হবে।

এছাড়া, ডিএনসিসির বিশেষ পরিচ্ছন্নতা টিম সেখানে কাজ করবে। তবে ব্যবহৃত সুরক্ষা সামগ্রী বা মেডিকেল বর্জ্য মাস্ক, গ্লাভস ইত্যাদি আলাদাভাবে প্যাকেট করে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের কাছে দিতে হবে। মেডিকেল বর্জ্য কোনোভাবেই অন্যান্য বর্জ্যের সাথে মেশানো যাবে না।

এদিকে, পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় অবস্থিত নাজনিন স্কুল এন্ড কলেজে কোভিড-১৯ পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহের জন্য বুথ স্থাপন করা হবে। এটি সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। বুথটি পরিচালনার দায়িত্বে থাকবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক।

অনলাইন সভায় অন্যান্যদের মধ্যে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা, এটুআই এর প্রতিনিধি রেজাউল জামি, ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন পরিচালক হাসপাতাল ডা. আমিনুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের তেজগাঁও জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার, শেরে বাংলা নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

লকডাউন চলাকালীন অবস্থায় যে কোন সমস্যার জন্য বাসিন্দারা যোগাযোগ করতে পারবে নিন্মোক্ত ফোন নম্বরগুলােতে:

ত্রাণের জন্যঃ ৩৩৩
গ্রাউন্ড কোর্ডিনেশন টিম মেম্বারঃ
২৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদুর রহমান ইরানঃ ০১৯১১-৩৮০৬৩৩;
আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ হোসেনঃ ০১৭১৫-৪০৭১৩৯;
ওসি শেরে বাংলা নগর থানাঃ ০১৭১৩-৩৯৮৩৩৫;
ব্র্যাকের প্রতিনিধি ডা. ফারহানাঃ ০১৭১৩-০৯৫২৭৯;
আইইডিসিআর প্রতিনিধি ডা. ফারজানা ০১৭১৯-২১২৫৯১;
মাসুদ হোসেন পি এ টু ওয়ার্ড কাউন্সিলরঃ ০১৭১১-৯৩৯৭৯৬









Leave a reply