ডিএমপির আরও ৫ ডিসি বদলি; আলোচিত হারুন তেজগাঁওয়ের দায়িত্বে

|

ঢাকা মহানগর পুলিশের উচ্চপদে আরও ৫ রদবদল হয়েছে। এদের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি), আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুন অর রশীদকে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সদর দফতরে বদলির পর আবারও বদলি করা হয়েছে। এতদিন ডিএমপির প্রকিউরমেন্ট অ্যান্ড ওয়ার্কশপ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) পদে থাকা হারুন অর রশীদকে মাস না পেরোতেই তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনারের (ডিসি) দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

এছাড়া, ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার আরও ৪ জন কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৯ জুন) ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ বদলি করা হয়।

বদলিকৃত অন্য কর্মকর্তারা হলেন- ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) বিপ্লব বিজয় তালুকদারকে লালবাগ বিভাগে; লালবাগ বিভাগের ডিসি মুনতাসিরুল ইসলামকে লজিস্টিকস বিভাগে; লজিস্টিকস বিভাগের ডিসি মো. জিয়াউল আহসান তালুকদারকে পিওএম-পশ্চিম বিভাগে ও পিওএম-পশ্চিম বিভাগের ডিসি মোহাম্মদ নজরুল ইসলামকে প্রকিউরমেন্ট অ্যান্ড ওয়ার্কশপ বিভাগের ডিসি হিসেবে বদলি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ আগেও ঢাকা মহানগর পুলিশে ছিলেন।
ঢাকা মহানগরে কাজ করার সময় বিএনপি নেতা জয়নুল আবদিন ফারুকের ওপর হামলার ঘটনায় তার নাম আলোচনায় আসে। এরপর কয়েক বছর গাজীপুরের পুলিশ সুপারের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। একাদশ সংসদ নির্বাচনের কয়েকদিন আগে হারুন অর রশীদকে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হিসেবে বদলি করে সরকার।

গেল বছরের নভেম্বরের শুরুতে হঠাৎ করেই এসপি হারুনের বদলির আদেশ আসে। নারায়ণগঞ্জ থেকে সরিয়ে তাকে পাঠানো হয় পুলিশ সদর দফতরে। গত ২ নভেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে এসপি হারুন পারটেক্স গ্রুপের কর্ণধার এম এ হাশেমের ছেলে আমবার গ্রুপের চেয়ারম্যান শওকত আজিজের স্ত্রী ও সন্তানকে আগেরদিন ভোররাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে আটকের কথা জানান। তিনি দাবি করেছিলেন, তাদের গাড়ি থেকে ইয়াবা, মদ ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। তবে শওকত আজিজের পরিবার থেকে অভিযোগ আসে, চাঁদা না পেয়ে শওকত আজিজের স্ত্রী-সন্তানকে ঢাকার গুলশানের বাসা থেকে ধরে নারায়ণগঞ্জে নিয়ে গিয়েছিলেন এসপি হারুন। ঘটনা পরম্পরায় তিনি অশ্রুসজল এক বিদায়ী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ থেকে দায়িত্ব ছেড়ে আসেন তিনি।









Leave a reply