বিচ্ছেদের কষ্টে মানসিক ভারসাম্য হারান মোর্শেদা

|

পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী তালাক দিয়ে দেন। বিচ্ছেদের কষ্ট সইতে না পেরে জামালপুরের মোর্শেদা খাতুন হারান মানসিক ভারসাম্য। ঘটনাটি ১০ বছর আগের। ভারসাম্য হারানোর কিছুদিন পরই মোর্শেদা নিরুদ্দেশ হন বাড়ি থেকে। হঠাৎ করে কয়েক মাস আগে ভারতের একটি হাসপাতালে তার সন্ধান মেলে। তবে নানা জটিলতায় ফিরিয়ে আনা যাচ্ছে না মোর্শেদাকে।

মেয়ের কথা মনে করে এখনো প্রতিদিন জলে চোখ ভাসে নমিজ উদ্দিনের। বিয়ে দিয়েছিলেন ভাল ঘর দেখে। জামালপুরের মেলান্দহের বাসিন্দা মোর্শেদার ঘর-সংসার ছিল, ছিল তিন সন্তানও। প্রায় ১০ বছর আগে, পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী হবিবর শেখ তালাক দেন তাকে। এরপর থেকেই নিরুদ্দেশ।

গত বছর মে মাসে পরিবারের সদস্যরা সন্ধান পান মোর্শেদার। জানতে পারেন, প্রতিবেশি দেশ ভারতের বহরমপুরে একটি মানসিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনি। সুস্থ হবার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানান পরিবারের ঠিকানা। অঞ্জলি নামে একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার মাধ্যমে পরিবারের সাথে যোগাযোগ হয় মোর্শেদার।

মানসিকভাবে অনেকটা সুস্থ হলেও শারীরিকভাবে এখনও বেশকিছু সমস্যা রয়েছে মোর্শেদার। তাই কাউন্সেলিংয়ের পাশাপাশি তাকে দেয়া হচ্ছে বেশ কিছু থেরাপি। মোর্শেদা বলেন, ‘আমি অনেক আগে চলে এসেছিলাম (ভারতে)। কিছু মনে নেই।’ কত দিন আগে- প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘আমি অশিক্ষিত মানুষ, লেখাপড়া জানিনা। কিভাবে বলবো কতদিন আগে?’

পরিবারের সদস্যরা তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এক্ষেত্রে সব ধরণের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছে প্রশাসন।

জামালপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. রাসেল সাবরিন জানান, তাকে আনার জন্য পরিবারের সাথে সব ধরনের যোগাযোগ রয়েছে আমাদের। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে মোর্শেদাকে দেশে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

 









Leave a reply