বিতর্কের মুখে ‘স্কিন কালার ফিল্টার’ সরাল শাদী-ডট-কম

|

বিতর্কের মুখে ‘স্কিন কালার ফিল্টার’ সরাল শাদী-ডট-কম

মেঘান আর হেতাল যাদের পিটিশানের মুখে গায়ের রং-এর ফিল্টার সরালো শাদী ডট কম

ফর্সা-কালো বিভেদ নিয়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়ে শেষমেশ স্কিন কালার ফিল্টারটি সরিয়ে দিল এই ম্যাট্রিমনিয়াল সাইট শাদি ডট কম। খবর বিবিসি।

বিয়ের বাজারে বরাবরই গায়ের রং বড় বিষয়। এ নিয়ে হইচই হলেও পাত্রী চাই বিজ্ঞাপনে উজ্জ্বল-ফর্সার চাহিদার এমন ভাবনা থেকেই এতকাল একটি ‘স্কিন কালার ফিল্টার’ ছিল বিখ্যাত মেট্রোমনিয়াল সাইট শাদি ডট কম-এ। এবার সেটি বাতিল হল। কালো মেয়েকে ফর্সা সাজানোর এই ফিল্টার আর ব্যবহার করা যাবে না।

সম্প্রতি আমেরিকায় কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর পরে বর্ণবৈষম্য নিয়ে উত্তাল হয় গোটা বিশ্ব। মানুষের মধ্যে নতুন করে সচেতনতা তৈরি হয়। প্রতিবাদে সরব হন বিনোদুনিয়া থেকে খেলার জগতের তারকারা। এই পরিবেশে রোষের মুখে পড়ে শাদি ডট কম-এর স্কিন কালার ফিল্টার। এই বিখ্যাত ওয়েবসাইটে থাকা পাত্র কিংবা পাত্রীর খোঁজে গায়ের রংকে অন্যভাবে গুরুত্ব দেওয়ার বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি মার্কিন মুলুকের বাসিন্দা হেতাল লাখানি। শাদি ডট কম ব্যবহারকারী মেঘান নাগপালের একটি ফেসবুক পোস্ট দেখে এই পিটিশনটি শুরু করার কথা মাথায় আসে লাখানির। তিনি অপশনটি সরানোর দাবিতে অনলাইনে আবেদন জানান। আবেদনে লেখেন, “দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে এখনও পাত্র, পাত্রী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে গায়ের রংয়ের প্রতি দুর্বলতা আছে। ওই জন্যই শাদি ডট কম-এও গায়ের রং বদলে ফেলার একটি ফিল্টার রয়েছে। অর্থাৎ গায়ের রং বিচার করে পাত্র-পাত্রী খোঁজার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। আমরা চাই এই ওয়েবসাইটটি চিরকালের মতো ফিল্টারটি সরিয়ে ফেলুক। যাতে সঠিক গায়ের রংয়ের মানুষ পরস্পরকে চিনে নিতে পারেন।”

সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই আন্দোলন সাড়া ফেলে। ১৬০০-এরও বেশি মানুষ ওই আবেদনে সই করেন। এবং শেষমেশ বিয়ের পাত্র-পাত্রী খোঁজ দেওয়ার এই জনপ্রিয় ওয়েবসাইটটিকে মেনে নিতে হল অভিযোগ। সরাতে হল ফিল্টারটি।

“শাদি ডট কমের একটি রঙের ফিল্টার রয়েছে যাতে ব্যবহারকারীদের ফর্সা, শ্যামবর্ণ, এবং কালোর মতো বর্ণনা ব্যবহার করে নিজেদের ত্বকের রঙ নির্দেশ করতে বলে এবং ত্বকের রঙের ভিত্তিতে সম্ভাব্য জীবনসঙ্গী অনুসন্ধান করার সুযোগ দেয়,” লিখেছেন হেতাল। তিনি আরও লেখেন, আমরা দাবি করছি যে শাদি ডট কম-কে অবশ্যই পছন্দসই ত্বকের রঙের উপর ভিত্তি করে বাছাই করার জন্য চামড়ার রঙের ফিল্টার স্থায়ীভাবে সরিয়ে ফেলতে হবে।

প্রথম প্রতিবাদটা অবশ্য করেন মেঘান নাগপাল। তিনি এনিয়ে শাদি.কম-এর সঙ্গেও কথা বলেন। এরপরে তিনি সংবাদমাধ্যমকে জানান, “আমি তাদের (শাদি ডট কম) ইমেল করি এবং একজন প্রতিনিধি বলেন যে এইটি বেশিরভাগ বাবা-মায়ের প্রয়োজনীয় ফিল্টার।”

এবার সেই অপশন সরিয়ে নেওয়ার পরে ম্যাট্রিমনিয়াল ওয়েবসাইটটির পক্ষে জানানো হয়েছে, কোনও উদ্দেশ্যে এই অপশনটি ছিল না।









Leave a reply