টেকনাফে বিজিবির অভিযানে ১ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ

|

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি অভিযান চালিয়ে এক লক্ষ চল্লিশ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করেছে। টেকনাফের খারাংখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই ইয়াবা জব্দ করা হয়।

বিজিবি টেকনাফ ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান আজ রোববার দুপুরে দেয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, ২৯ আগস্ট শনিবার গভীর রাতে টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) এর অধীনস্থ খারাংখালী বিওপি’র দায়িত্বপূর্ণ বিআরএম-১৫ এবং ১৬ এর মধ্যবর্তী এলাকা দিয়ে মিয়ানমার থেকে ইয়াবার একটি বড় চালান বাংলাদেশে পাচার হতে পারে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে খারাংখালী বিওপি’র একটি বিশেষ টহলদল দ্রুত বর্ণিত এলাকায় গমন করে গোপনে অবস্থান নেয়। রাত ১২টার দিকে বিজিবি টহলদল এক জন ইয়াবা কারবারিকে দুইটি প্লাস্টিকের বস্তা নিয়ে সাঁতরিয়ে বিআরএম-১৫ হতে আনুমানিক ১০০ গজ উত্তর দিক দিয়ে নদীর তীর হতে বেড়ী বাঁধে উঠতে দেখে চ্যালেঞ্জ করে। উক্ত চোরাকারবারি দূর হতে টহলদলের উপস্থিতি লক্ষ্য করে, তার সাথে থাকা বস্তা দুটি ফেলে নাফ নদীতে লাফ দিয়ে সাঁতরিয়ে শূন্য রেখা অতিক্রম করে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলে যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পরবর্তীতে টহলদল বর্ণিত স্থানে পৌঁছে ইয়াবা পাচারকারীর ফেলে যাওয়া উল্লিখিত প্লাস্টিকের বস্তা দুটি উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত বস্তার ভিতর হতে ১ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করতে সক্ষম হয়। পরবর্তীতে ইয়াবা পাচারকারীকে আটকের নিমিত্তে বর্ণিত এলাকা ও নদীর তীরসহ পার্শ্ববর্তী স্থানে রাতভর তল্লাশি অভিযান পরিচালনা করা হলেও কোনো পাচারকারীকে আটক করা সম্ভব হয়নি। উক্ত স্থানে অন্য কোনো অসামরিক ব্যক্তিকে পাওয়া যায়নি বিধায় ইয়াবা কারবারিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি।

জানা যায়, তাদের শনাক্ত করার জন্য অত্র ব্যাটালিয়ন কর্তৃক গোয়েন্দা কার্যক্রম চলমান রয়েছে। উদ্ধারকৃত মালিকবিহীন ইয়াবাগুলো বর্তমানে ব্যাটালিয়ন সদরের স্টোরে জমা রাখা হবে এবং প্রয়োজনীয় আইনি কার্যক্রম গ্রহণ পরবর্তীতে তা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।

ইউএইচ/









Leave a reply