অসুন্দর ব্যক্তি, বন্ধ্যা মহিলাদের শিক্ষক হতে মানা ইরানে!

|

আপনি দেখতে খুব সুদর্শন নন? কিম্বা আপনার গালে বড় একটি দাগ আছে? অথবা মুখে ব্রণ লেগেই থাকে সারা বছর? আপনার জন্য একটি দুঃসংবাদ! আপনি শিক্ষকতার চাকরি করতে পারবেন না জীবনেও!

কী? অদ্ভুত শোনাচ্ছে ব্যাপারটা? অদ্ভুত হলেও এটাই নাকি সত্য! ডেইলি মেইল এমন খবরই জানাচ্ছে। তবে আপনার জন্য স্বস্তির বিষয় হল, ঘটনা বাংলাদেশের নয়, ইরানের। তাই আপাতত আপনাকে এমন নিয়মের খড়গে পড়তে হচ্ছে না!

ইরানের আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা ফারর্সনিউজ এর বরাতে ডেইলি মেইল জানিয়েছে, ইরানের শিক্ষা মন্ত্রণালয় শিক্ষক নিয়োগে নতুন কিছু নিয়ম সম্বলিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়েছে, সুন্দর নয় এমন চেহারার কাউকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হবে না। ট্যারা চোখ, মুখে বা চামড়ায় দাগ/ব্রণ কিম্বা ইনফেকশন থাকা ব্যক্তিরাও শিক্ষক হতে পারবেন না। কারো দাঁতের সংখ্যা ২০ এর নিচে চলে এলে তারও চাকরি ‘নট’!

ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন

মহিলাদের ক্ষেত্রে আছে আরও বিশেষ শর্ত। কারো মুখে অবাঞ্চিত লোম থাকলে তিনিও শিক্ষক হওয়ার অযোগ্য বলে বিবেচিত হবেন! বর্ণান্ধ ব্যক্তিরা আর বন্ধ্যা মহিলারা হতে পারবেন না শিল্পকলার শিক্ষক।

শিক্ষক নিয়োগে এমনসব অদ্ভুত নিয়ম কানুন দেখে অনেকেই সমালোচনা করছেন ইরানের এই পদক্ষেপের। তারা তুলনা করে বলছেন, নতুন নিয়ম মানলে শারীরিক প্রতিবন্ধকতা থাকায় স্টিফেন হকিংয়ের মতো ইরানে শিক্ষকতা করতে পারবে না! তবে ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে এ বিষয়ে ইরানের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল কারো বক্তব্য তুলে ধরা হয়নি।

/কিউএস









Leave a reply