রাতের আধারে ফসলের সঙ্গে শত্রুতা, নিঃস্ব কৃষক

|

আহমেদ নাসিম আনসারী, ঝিনাইদহ:

ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে সম্প্রতি বৃদ্ধি পেয়েছে ফসলি ক্ষেত বিনষ্টের ঘটনা। দুবৃর্ত্তরা রাতের আধারে একের পর এক ফসলের ক্ষেত নষ্ট করছে। ধারদেনার মাধ্যমে ফসল চাষ করার পর ভরা ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় কৃষকেরা একেবারে পথে বসে যাচ্ছেন। রাতের আধারে এমন কাজ করায় ক্ষতিগ্রস্থরা নির্দিষ্টভাবে কারও বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করতে পারছেন না। ফলে এমন ক্ষতিকর কাজ করেও দুর্বৃত্তরা থাকছে ধরা- ছোঁয়ার বাইরে। এদিকে প্রায়ই ক্ষেত নষ্টের ঘটনা ঘটায় সবজি ক্ষেতের মালিকেরা রয়েছেন আতঙ্কে। প্রশাসন বলছে, ব্যক্তিগত, সামাজিক, রাজনৈতিক, গোষ্টিগত বিরোধের জেরে এমনটি হয়ে থাকতে পারে।

ভুক্তভোগী কৃষকরা জানিয়েছে, বিগত কয়েক মাস ধরে সবার অগোচরে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকদের সবজি ক্ষেত কেটে সাবাড় করছে। কখনও কখনও পুকুরে কীটনাশক দিয়ে অথবা গ্যাস বড়ি ব্যবহারের মাধ্যমে মাছ নিধন করছে। শত্রুতা করেই কেউ এমন কাজ করছে বলে ধারণা তাদের।

উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২০ জুন বাবরা গ্রামের আলী বকসের ২ ছেলে কৃষক টিপু সুলতান ও শহিদুল ইসলামের দুই ভায়ের ১৫ কাঠা জমির কাঁদিওয়ালা কলাগাছ কেটে দেয় দুর্বৃত্তরা। একইভাবে ৩ জুলাই মল্লিকপুর গ্রামের মল্লিক মন্ডলের ছেলে সবজি চাষী মাজেদুল মন্ডলের বেথুলী মাঠের আড়াই বিঘা জমির ৩ শতাধিক পেপে গাছ কেটে দেয়। এর ঠিক ৪ দিন পরে ৭ জুলাই পৌর এলাকার ফয়লা গ্রামের তাকের হোসেনের ছেলে আবু সাঈদের ১৫ শতক জমির করলা ক্ষেত কেটে দেয়। ১৩ জুলাই বারোবাজারের ঘোপ গ্রামের মাহতাব মুন্সির ছেলে আব্দুর রশিদের দেড় বিঘা জমির শিম গাছে কীটনাশক স্প্রে করে পুড়িয়ে দেয়। ২৮ আগস্ট সাইটবাড়িয়া গ্রামের মাছচাষী ইউপি সদস্য কবিরুল ইসলাম নান্নুর পুকুরে গ্যাস বড়ি দিয়ে প্রায় দেড় লক্ষাধিক টাকার মাছ নিধন করে। এর ৩ দিন পর ৩১ আগষ্ট একই ইউনিয়নের রাড়িপাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্যের ৪৮ শতক মুল্যবান দার্জিলিং লেবু ও থাই পেয়ারার কলম কেটে দেয় দূর্বৃত্তরা।

ক্ষতিগ্রস্থ মাছ চাষী সাইটবাড়িয়া গ্রামের কবিরুল ইসলাম নান্নু বলেন, ধার করে মাছ চাষ করেছিলাম। মাছও বেশ বড় হয়েছিল। কিন্ত রাতের আধারে কে বা কারা পুকুরে গ্যাস বড়ি দিয়ে লক্ষাধিক টাকার মাছ মেরে দিয়েছে। সকালে পুকুর থেকে মরা মাছ তোলার সময় গ্যাস বড়ি পেয়েছিলাম। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, আমি কারও শত্রু হতে পারি; অথবা আমার কোন অপরাধ থাকতে পারে, কিন্ত পুকুরের মাছগুলো কি অপরাধ করেছে ?

নান্নু জানান, রাতের আধারে কে বা কারা মাছ নিধন করেছে তা আমি জানি না। তাই শুধু থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করেছি।

সাইটবাড়িয়া গ্রামের ক্ষতিগ্রস্থ আরেক কৃষক বাপ্পি মোল্যা জানান, মাঠের ৯ শতক জমিই আমার একমাত্র সম্বল। সারাবছর পরের ক্ষেতে কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরে বিকেলে নিজের ওই জমিটাতে বেগুন লাগিয়ে প্রতিনিয়ত পরিশ্রম করি। গাছগুলোতে বেগুন ধরা শুরু হয়েছিল। কিন্ত আমার ধরন্ত বেগুন ক্ষেত ধারালো কিছু দিয়ে মাটি সমান করে কেটে সাবাড় করে দিয়েছে। ক্ষেত নষ্ট হওয়ার ফলে আমি আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছি। যে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আমার বেশ সময় পার করতে হবে।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার ওসি মাহাফুজুর রহমান মিয়া জানান, সম্প্রতি এমন ঘটনার কথা শুনছি। কিন্ত দুষ্টু প্রকৃতির এ মানুষগুলোর বিরুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্তরা সন্দেহ করলেও তা অনুমান নির্ভর হওয়ায় কেউ অভিযোগ দিতে চাচ্ছেন না। আবার বলতে পারছেন না কারা এমন জঘন্য কাজ করছে। ফলে এক ধরনের জটিলতা থেকেই যাচ্ছে। তারপরও পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

স্থানীয় সাংসদ আনোয়ারুল আজিম আনার বলেন, যারা ক্ষেত নষ্ট করছে তাদের কোন লাভ হচ্ছে না। তবে যাদের ক্ষেত নষ্ট হচ্ছে তারা নিঃস্ব হচ্ছে। সম্প্রতি বিষয়টি সকলকে ভাবিয়ে তুলেছে। কারা এমন অমানবিক কাজ করছে তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।









Leave a reply