স্বাস্থ্যকর অফিস স্ন্যাকস: শক্তি জুগিয়ে কর্মঠ রাখবে

|

স্বাস্থ্যকর অফিস স্ন্যাকস: শক্তি জুগিয়ে কর্মঠ রাখবে

সাধারণত আমরা তিনবেলা খাবার খাই। তবে এর বাইরেও টুকটাক কিছু খাওয়া হয়। বিশেষ করে অফিসে কাজ করতে করতে ক্লান্তি চলে আসে, তখন চা-কফির সঙ্গে কিছু অনুষঙ্গ খাবারও খেতে ইচ্ছে করে। তাই এ সময় চাই স্বাস্থ্যকর ও শরীরে অনেকক্ষণ শক্তি দিতে পারে, সেইসঙ্গে ওজনও বাড়াবে না এমন কিছু খাবার। বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানিয়েছে এসব খাবারের নাম।

* ঘিয়ে ভাজা মাখানা:
মাখানা হলো এমন এক ধরনের বাদাম, যাতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন ও স্বাস্থ্যসম্মত কার্বোহাইড্রেট রয়েছে। এগুলোতে ক্যালরি কম থাকে এবং এটির অ্যান্টি-এজিং ও অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। মাখানায় প্রচুর ম্যাগনেসিয়াম থাকলেও এটি মোটেই চটচটে নয়। মাখানা ঘি দিয়ে ভেজে একটি কাচের জারে ভর্তি করে রাখুন। আপনি চাইলে এগুলোর ওপরে অল্প লবণ ছিটিয়ে নিতে পারেন। প্রতিদিন এই ঘিয়ে ভাজা মাখানা একটি ছোট বাক্সে করে অফিসে নিয়ে যান।

* কালো ছোলা ভাজা:
ভাজা কালো ছোলা অন্যতম স্বাস্থ্যকর খাবার। কালো ছোলা পরিমাণমতো নিয়ে নিন এবং কম আগুনে একটু একটু করে ভাজুন। তারপর এয়ারটাইট কাচের জারে ভরে রেখে দিন। পরের দিন অফিসে স্ন্যাকস হিসেবে নিয়ে যেতে পারেন এই ছোলা ভাজা। এগুলোতে চর্বি, আঁশ ও প্রোটিন বেশি থাকে। এটি চটপট আপনার শরীরকে প্রয়োজনীয় উপাদান সরবরাহ করতে পারে এবং কাজের মধ্যে অল্প খিদে পেলে চট করে তা মেটাতেও পারে। তবে পরামর্শ হচ্ছে, অনেক দিন রাখতে হলে কালো ছোলার ওপর লবণ দেবেন না। প্রয়োজনে আলাদা করে অল্প লবণ খেতে পারেন।

* বিভিন্ন বাদাম ও বীজ মিশ্রণ:
এটা এমন একটি স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস, যার জন্য কোনো রান্না ও পূর্বপ্রস্তুতির প্রয়োজন নেই। একসঙ্গে বিভিন্ন রকমের বাদাম ও বীজ কিনে রাখুন এবং বাদাম ও বীজের একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। তারপর এগুলোকে কাচের জারে সংরক্ষণ করুন। বাদাম ও বীজ হলো প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য পেট ভর্তি রাখে।

* ফল:
কাজের ফাঁকে খান মৌসুমি ফল। আপেল ও কলা জাতীয় ফলের জন্য প্রস্তুতির কোনো প্রয়োজন হয় না এবং এগুলো স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর। চটজলদি অফিসে খেয়েও নিতে পারবেন। তবে আপনি যে ফলটি বেছে নিচ্ছেন, তা মৌসুমি ফল হলে ভালো হয়। টাটকা ফলগুলো স্বাস্থ্যকর, সুষম ডায়েটের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। ফলগুলো আপনাকে স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখতে সহায়তা করবে।

* চালভাজা:
আপনি একসঙ্গে একটি পাত্রে মোটা ও চ্যাপটা চাল ভেজে নিতে পারেন। চাইলে ওই মিশ্রণে একটু কালো ছোলাও দিতে পারেন। এগুলোকে মাঝারি আঁচে ততক্ষণ পর্যন্ত ভাজুন, যাতে এগুলো কুঁচকে গিয়ে কুড়মুড়ে হয়ে যায়। তারপর এগুলোকে কাচের জারে সংরক্ষণ করে রাখুন এবং প্রয়োজনমতো অফিসে টিফিন হিসেবে নিয়ে যান।









Leave a reply