তরুণী হত্যার অভিযোগে প্রেমিক আটক

|

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে এক তরুণীর মরদেহ উদ্ধারের পর হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন ও হত্যার সাথে জড়িত ঘাতক প্রেমিককে আটক করেছে পুলিশ। ঘাতক দিপেশ উরাং পেশায় সিএনজি চালক।

শনিবার রাতে নিহত রেশমা বেগমের ছোট ভাই রহমত আলী বাদী হয়ে কমলগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপরই দিপেশ উরাংকে আটক করে পুলিশ।

রোববার বিকেলে তাকে মৌলভীবাজার বিজ্ঞ আদালতে পাঠালে ১৬৪ ধারায় হত্যার ঘটনা বর্ণনা দিয়েছে ঘাতক।

পুলিশ জানায়, কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর চা বাগানের মৃত আব্দুর রহিমের মেয়ে স্কুল ছাত্রী রেশমা বেগম সাথে আলী নগর ইউনিয়নের সুনছড়া চা বাগানের বাসিন্দারা তেন্ত্রা উড়াংয়ের ছেলে দিপেশ উড়াং এর পরিচয় হয় একটি বিয়েতে। এরপর তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে দিপেশ সম্পর্ক ছিন্ন করতে চাইলে রেশমা মানেনি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রেশমাকে হত্যার পরিকল্পনা করে ঘাতক দিপেশ।
গত ৯ নভেম্বর বিকেলে বেড়ানোর কথা বলে দিপেশ রেশমাকে মোটরবাইকে করে রহিমপুর ইউনিয়নের দেওড়াছড়া চা বাগানের ভেতরের একটি টিলায় নিয়ে যায়। সেখানে পেছন থেকে গলায় রশি পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করে। পরে লাশ টেনে নিয়ে পার্শ্ববর্তী অন্য টিলায় রেখে চলে আসে। এরপর গত ১৩ নভেম্বর চা বাগান থেকে রেশমার গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান বলেন, ঘটনার মুল আসামি রেশমার প্রেমিক দিপেশকে আটক করে তার জবানবন্দী অনুযায়ী হত্যার আলামত উদ্ধার করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে গ্রেফতার দেখিয়ে বিকালে আসামিকে মৌলভীবাজার বিজ্ঞ আদালতে পাঠালে ১৬৪ ধারায় হত্যার দায় স্বীকার করে।









Leave a reply