আজ মহাশ্বেতা দেবীর জন্মদিন

|

আজ মহাশ্বেতা দেবীর জন্মদিন

ভারতবর্ষের বলিষ্ঠ সাহিত্যিক মহাশ্বেতা দেবীর জন্মদিন আজ। ১৯২৬ সালের ১৪ জানুয়ারি ব্রিটিশ ভারতের ঢাকা শহরে মহাশ্বেতা দেবী জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার বাবা মণীষ ঘটক ছিলেন কল্লোল সাহিত্য আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত খ্যাতনামা কবি ও ঔপন্যাসিক। আর কাকা বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক ঋত্বিক ঘটক। মহাশ্বেতা দেবীর মা ধরিত্রী দেবীও ছিলেন লেখক ও সমাজকর্মী।

ছোটবেলায় শান্তিনিকেতন আশ্রমে দেখা হয়েছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে। তখনকার আশ্রম-জীবন তাকে দিয়েছিল অদম্য মুক্তির আনন্দ, পরকে আপন করার নিঃস্বার্থ টান। তাইতো সারা জীবন ধরে দলিত ও প্রান্তিক মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। লোধা, শবরদের জন্য কলম ধরেছেন তিনি। সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামের আন্দোলনেও ছিল তার অসামান্য অবদান। তিনি ছিলেন বাংলা তথা গোটা ভারতবর্ষের একজন বলিষ্ঠ সাহিত্যিক।

মহাশ্বেতা দেবীর বিদ্যালয়-শিক্ষা শুরু হয়েছিল ঢাকা শহরেই। ইডেন স্কুলের মন্টেসরিতে পড়াশোনা শুরু করেন। ভারত ভাগের পর তিনি পশ্চিমবঙ্গে চলে যান। সেখানে মেদিনীপুরে চতুর্থ শ্রেণিতে ভর্তি হন। ১৯৩৬ সালে তিনি পড়াশোনা করতে শান্তিনিকেতন যান। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর-প্রতিষ্ঠিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠভবনে ভর্তি হন। এ সময় মাত্র দুবছর শান্তিনিকেতনে কাটালেও তা ছিল তার জীবনের উল্লেখযোগ্য সময়। এ সময়ই তার লেখালেখির শুরু। অষ্টম শ্রেণিতে পড়ার সময় খগেন্দ্রনাথ সেন সম্পাদিত ‘রংমশাল’ পত্রিকায় প্রথম প্রকাশিত হয় তার রবীন্দ্রনাথ-সম্পর্কিত রচনা ‘ছেলেবেলা’।

১৯৩৯ সালে তিনি কলকাতায় চলে যান। সেখান থেকে ম্যাট্রিক পাস করে ১৯৪২ সালে আশুতোষ কলেজে ভর্তি হন। ১৯৪৩-এ পঞ্চাশের মন্বন্তরের সময় মহাশ্বেতা দেবী প্রথম বর্ষে পড়েন এবং কম্যুনিস্ট পার্টির ছাত্রী সংগঠন এবং দুর্ভিক্ষ ত্রাণের কাজে জড়িয়ে পরেন।

১৯৪৪ সালে বিএ পড়তে মহাশ্বেতা ফিরে যান শান্তিনিকেতনে। ১৯৪৬ সালে আবার কলকাতায় ফিরে ইংরেজিতে অনার্সসহ বিএ পাস করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগে এমএ ভর্তি হন। কিন্তু তখন রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে পড়াশোনা ব্যাহত হয়। পরে দীর্ঘ বিরোতির পর ১৯৬৩ সালে তিনি প্রাইভেটে ইংরেজিতে এমএ পাস করেন।

মহাশ্বেতা দেবী ১০০টিরও বেশি উপন্যাস এবং ২০টিরও বেশি ছোটোগল্প সংকলন রচনা করেছেন। তবে তার রচনার মধ্যে অনেকগুলো অন্যান্য ভাষায় অনূদিত হয়েছে। তার প্রথম উপন্যাস ঝাঁসির রানি ঝাঁসির রানির (লক্ষ্মীবাই) জীবনী অবলম্বনে রচিত। এটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৫৬ সালে। তার উল্লেখযোগ্য রচনাগুলি হল হাজার চুরাশির মা (১৯৭৪), রুদালি (১৯৯৩), অরণ্যের অধিকার (১৯৭৯) প্রভৃতি। ‘অরণ্যের অধিকার’ উপন্যাসের জন্য ১৯৭৯-এ সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার পান মহাশ্বেতা দেবী।

কাজের স্বীকৃতি হিসেবে জ্ঞানপীঠ পুরস্কার ও র‌্যামন ম্যাগসাইসাই পুরস্কার, সার্ক সাহিত্য পুরস্কারসহ একাধিক সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন। ভারতের চতুর্থ ও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান যথাক্রমে পদ্মশ্রী ও পদ্মবিভূষণে ভূষিত হন তিনি। পশ্চিমবঙ্গ সরকার তাকে রাজ্যের সর্বোচ্চ অসামরিক সম্মান বঙ্গবিভূষণে ভূষিত করে।

২০১৬ সালের ২৩ জুলাই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মহাশ্বেতা দেবী কলকাতার বেল ভিউ ক্লিনিকে ভর্তি হন। ২৮ জুলাই তিনি মারা যান।









Leave a reply