সুকুমার সেনের জন্মদিন আজ

|

সুকুমার সেনের জন্মদিন আজ

ভাষাতাত্ত্বিক ও সাহিত্যবিশারদ সুকুমার সেন ১৯০১ সালের ১৬ জানুয়ারি কলকাতায় মাতুতালয়ে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতা হরেন্দ্রনাথ মিত্র ও মা নলিনী দেবী। বর্ধমান জেলার গোতান গ্রামে ছিল তাদের পৈতৃক নিবাস। এখানেই সুকুমার সেনের পড়াশোনার শুরু।

১৯১৭ সালে বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুল থেকে প্রথম বিভাগে প্রবেশিকা পরীক্ষা এবং ১৯১৯ সালে বর্ধমান রাজ কলেজ থেকে বাংলা, সংস্কৃত, লজিক ও অঙ্কে লেটারসহ প্রথম বিভাগে আই.এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯২১ সালে কলকাতার সংস্কৃত কলেজ থেকে সংস্কৃতে সাম্মানিকসহ প্রথম বিভাগে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে বি.এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯২৩ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তুলনামূলক ভাষাতত্ত্বে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান অধিকার করে এম.এ. পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯২৫ সালে “সিনট্যাক্স অফ বৈদিক প্রোজ” নামে একটি থিসিস লিখে প্রেমচাঁদ-রায়চাঁদ বৃত্তি লাভ করেন। ১৯২৬ সালে তার প্রথম গবেষণা প্রবন্ধ “নোটস অফ দি ইউজ অফ কেসেস ইন দ্য কথক সংহিতা” প্রকাশিত হয় এশিয়াটিক সোসাইটি জার্নালে। এরপর মধ্য ও আধুনিক (বাংলা) আর্যভাষার ঐতিহাসিক পদবিচারের উপর গবেষণা করে তিনি পি.এইচ.ডি ডিগ্রি অর্জন করেন।

সুকুমার সেন মিথ-আশ্রিত ভাষাতত্ত্ব বা পুরাণচর্চার পরিবর্তে আধুনিক বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিটি অবলম্বন করতেন। জয়দেবের গীতগোবিন্দ কাব্যের প্রাচীন পুঁথিটি তারই আবিষ্কার। সেকশুভোদয়া পুঁথিটিও তিনি সম্পাদনা করেছেন।

সুকুমার সেনের উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলো হলো- ভাষার ইতিবৃত্ত, বাংলা স্থাননাম, রামকথার প্রাক-ইতিহাস, ভারত-কথার গ্রন্থিমোচন, বাঙ্গালা সাহিত্যের ইতিহাস, বঙ্গভূমিকা ইত্যাদি।

ভাষাতত্ত্ব ও পুরাণ ছাড়া রবীন্দ্রসাহিত্যেও তার ছিল বিশেষ প্রজ্ঞা। তিনি ছিলেন রবীন্দ্রনাথের সাহিত্য ব্যাখ্যাতা ও রসজ্ঞ। ১৯৬৪ সালে ভারতীয় সাহিত্যের ইতিহাস গ্রন্থের জন্য রবীন্দ্র পুরস্কার পান। এশিয়াটিক সোসাইটি তাকে ‘যদুনাথ সরকার পদক’ দিয়ে সম্মানিত করে। রবীন্দ্রচর্চা কেন্দ্র থেকে পান ররীন্দ্র তত্ত্বাচার্য উপাধি। তিনি মারা যান ৩ মার্চ ১৯৯২।









Leave a reply