মর্যাদার লড়াইয়ে হার মানেনি মোহামেডান

|

মর্যাদার লড়াই বলে কথা। কুমিল্লা স্টেডিয়ামে তাই দেখা মিললও হাজারও ফুটবল ভক্তদের। কে বলেছে ফুটবল মাঠে দর্শক নেই, এমনকি দুই পরাশক্তি আবাহনী ও মোহামেডানের ম্যাচেও দর্শক হয় না। এমন, সব কথাই উড়িয়ে দিয়েছে আজকের ম্যাচের চিত্র। দুই নগর প্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াইয়ে যেমন দর্শকে ভরা ছিলো পুরো স্টেডিয়াম ঠিক তেমনি লড়াইটাও হয়েছে জমজমাট। শক্তির দিক থেকে আবাহনী এগিয়ে থাকলেও ছাড় দেয়নি মোহামেডান। শেষ পর্যন্ত ২-২ গোলের ড্র নিয়েছে মাঠ ছেড়েছেন তারা।

কুমিল্লার শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে, ম্যাচের চার মিনিটেই আবাহনীর মুখে হাসি ফুটান বেলফোর্ট। ১-০ গোলের লিড নিয়ে আরও গতিময় ফুটবল খেলতে থাকে আবাহনী। তবে সেই গতই খুব বেশি সময় ধরে রাখতে পারেনি আকাশী নীলরা। ৭ মিনিটেই সমতায় ফেরেন তারা। দিয়াবাতের নিখুঁত ফিনিসিংয়ে সমতায় ফেরে সাদাকালোরা।

তবে, ম্যাচের ৩৩ মিনিটে আবারও লিড নেয় ঢাকা আবাহনী। জুয়েল রানার স্কোরে ২-১ গোলে এগিয়ে যায় আকাশী নীলরা। বিরতির আগে অবশ্য আরও একবার এগিয়ে গিয়েছিলো আবাহনী, তবে জুয়েল রানার করা সেই গোলটি হয়েছিলো অফসাইড। সেই কারণেই ২-১ গোলের এগিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ করে আবাহনী।

দ্বিতীয়ার্ধেও হাল ছাড়েননি মোহামেডান। প্রতিপক্ষের ডিফেন্স ভাঙ্গতে করেছে একের পর এক আক্রমণ। তার ফলেই ম্যাচের ৬৬ মিনিটে সমতায় ফেরে মোহামেডান। দিয়াবাতের ব্যাকভলিতে গোল করারা সাথে সাথে পাল্টে যায় ম্যাচের চিত্র। এখন লড়াই শুরু হয় গোল ব্যবধান বাড়িয়ে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ার।

শেষ পর্যন্ত স্কোর করে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে দুই দলের খেলোয়াড়রা। তাই ২-২ গোলের সমতা নিয়েই জমজমাট এক লড়াই উপহার দেয় ঢাকার দুই জায়ান্ট। চার ম্যাচে আবাহনীর পয়েন্ট ১০ আর মোহামেডানের পয়েন্ট ৫।









Leave a reply