মায়ের বুক খালি হলে ওবায়দুল কাদেরকে দায় নিতে হবে: কাদের মির্জা

|

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ব্যাপক সংঘর্ষের পর ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে এসে কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সেতুমন্ত্রীর ছোটভাই ও বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। নিজের দলের নেতাকর্মীদের ওপর চাপরাশিরহাট বাজারে হামলা হয়েছে বলে দাবি করে মেয়র বলেন, তার কোনো নেতাকর্মী মারা গেলে তার দায়দায়িত্ব সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন ও প্রশাসনকে নিতে হবে বলে জানান কাদের মির্জা।

কাদের মির্জা লাইভে বলেন, প্রিয় দেশবাসী আসসালামু আলাইকুম। আজকে তথকথিত এমপি একরামুল করিম চৌধুরী ও তার সন্ত্রাসী বাহিনী আমার চাপরাশিরহাটএ, চরফকিরায় মানুষের ওপর গুলিবর্ষণ করেছে পুলিশের সহযোগিতায়। পুলিশ সামনে থেকে আমার লোকজনের ওপর গুলি করেছে। ইতিমধ্যে প্রায় ৫০ জনের মতো আহত হয়েছে।

তিনি বলেন, আজকে যদি একটা মায়ের বুক খালি হয় এটার জন্য ওবায়দুল কাদের এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিনকে এবং প্রশাসনকে দায়ী থাকতে হবে। নোয়াখালীর এসপি, ডিসির সহযোগিতায় একরাম তার বাড়িতে মিটিং করে এখানে গুণ্ডা, সন্ত্রাসী অস্ত্রধারীকে পাঠায়ছে। আমিও আছি। দরকার হলে মৃত্যুবরণ করবো আমি এখান থেকে যাবো না।

ওবায়দুল কাদেরকে দায়ী করে ক্ষুব্ধ কাদের মির্জা বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব আপনাকে জবাব দিতে হবে আমার এলাকার একটা লোকের জন্য মৃত্যু হয়। ওই শাহাবুদ্দিন সাহেব তোমাকে জবাব দিতে হবে, প্রশাসনকে জবাব দিতে হবে। আজকে কেনো অস্ত্রের ঝনঝনানি চলছে। এটা আমি কোনো অবস্থায় বরদাশত করবো না। আমাকে কোনো অবস্থায় স্তব্দ করতে পারবে না যতক্ষণ পর্যন্ত আমার বুকে নিঃশ্বাস আছে।

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই ও বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীদের সাথে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে কোম্পানীগঞ্জ রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে। দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ৭ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এছাড়াও অন্তত দুই পক্ষের ১২ জন আহত হয়েছেন।









Leave a reply