ইন্টারনেটের গতি কমানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার

|

প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষার আগে ইন্টারনেটের গতি কমানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে সরকার। সোমবার সকাল ৮টায় বিটিআরসি থেকে আইএসপি ও মোবাইল অপারেটরদের নতুন নির্দেশনা দিয়ে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক রাখতে বলা হয়েছে। পরবর্তি নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত ইন্টারনেটে গতি সীমিতকরণ সংক্রান্ত সব ধরণের কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়।

চলমান এসএসসি পরীক্ষা শুরুর দুই ঘণ্টা আগে থেকে মোট আড়াই ঘণ্টা সময় ইন্টারনেটে ধীর গতি রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো সরকার। রোববার বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) এ সংক্রান্ত এক আদেশ জারি করে। আদেশে বলা হয়, পরীক্ষার নির্দিষ্ট দিনগুলোতে সকাল ৮টা থেকে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ইন্টারনেট ধীর গতিতে চলবে। পরীক্ষামূলকভাবে আজ রোববার রাত ১০টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত আধাঘণ্টা ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখা হবে।

আদেশে বলা হয়, আগাসী ১২, ১৩, ১৫, ১৭, ১৯, ২০, ২২, ২৪ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখতে হবে। এছাড়া ১৮ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা এবং দুপুর ১২টা থেকে আড়াইটা পর্যন্ত কম থাকবে ইন্টারনেটের গতি।

চলমান এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস কোনোভাবেই ঠেকাতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। প্রায় প্রতিটি পরীক্ষার পরপরই দেখা গেছে সকালে বা আগের রাতে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের সাথে পরীক্ষার হলের প্রশ্ন হুবহু মিলে গেছে। এই অপকর্ম ঠেকাতে তাই এবার ইন্টারনেটের গতি কমানোর মতো পদক্ষেপ নেয় সরকার।









Leave a reply