৯ মাসে ২১ শতাংশের বেশি মুনাফা বৃদ্ধি সোনালি পেপারের

|

চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই’২০-মার্চ’২১) কর পরবর্তী ৪.১৯ কোটি টাকা মুনাফা হয়েছে সোনালি পেপারের। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ৩.৪৬ কোটি টাকা। অর্থাৎ এই সময়ে কোম্পানিটির নীট মুনাফা বেড়েছে ২১.১৫ শতাংশ। শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ২৯ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৮ পয়সা। শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ‘এ’ ক্যাটাগরির কোম্পানি সোনালী পেপার অ্যান্ড বোর্ড মিলস লিমিটেডের তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই’২০-মার্চ’২১) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে কোম্পানিটির সবশেষ তিন মাসে (জানুয়ারি’২১-মার্চ’২১) শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২২ পয়সা। যা গত বছরের একই সময়ে ছিল ৩২ পয়সা।  চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ২৮১ টাকা ৭৩ পয়সা। যা গত ৩০ জুন পর্যন্ত ছিল ৩০৭ টাকা ৮৮ পয়সা।

গত বছরে ওভার দ্য কাউন্টার (ওটিসি) মার্কেট থেকে মূল মার্কেটে ফিরে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ২০১৯-২০ অর্থবছরের ব্যবসায় শেয়ার হোল্ডারদের ৫ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাস, মোট ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করে। এর ফলে দেশের শেয়ারবাজারে কোম্পানটি ‘জেড’ ক্যাটাগরি থেকে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে উন্নীত হয়।

গত ২৪ ডিসেম্বর কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ ২০১৯-২০ অর্থবছরের ব্যবসায় শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ বিতরণ করে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে উন্নীত হয়েছে।  আর পেপার ও প্রিন্টিং খাতের এ কোম্পানিটি ২০১৯ সালে শেয়ারহোল্ডারদের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ দেয়।

উল্লেখ্য, সোনালি পেপার ১৯৭৭ সালে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করে। ১৯৮৫ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয় কোম্পানিটি।
২০০৬ সালে কোম্পানিটি অধিগ্রহণ করে ইউনুস গ্রুপ। সোনালি পেপার প্রিন্টিং পেপারসহ বিভিন্ন ধরনের কাগজ উৎপাদন করে। বার্ষিক উৎপাদন সক্ষমতা ৩৫ হাজার টন। বর্তমানে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ১৪ কোটি টাকা।









Leave a reply