ফকির আলমগীর লাইফ সাপোর্টে

|

গণসঙ্গীত শিল্পী ও কণ্ঠযোদ্ধা ফকির আলমগীর। ছবি: সংগৃহীত

কোভিডে আক্রান্ত হয়ে ইউনাইটেড হাসপাতালে বর্তমানে চিকিৎসাধীন একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা ও গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটার কারণে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তার পরিবার। জানা গেছে, ফকির আলমগীরকে রাখা হয়েছে ভেন্টিলেশনে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফকির আলমগীরের পুত্র মাশুক আলমগীর রাজীবের স্ট্যাটাস থেকে জানা যায়, আজ সকালে ফকির আলমগীর অনেকটাই সুস্থ ছিলেন। কিন্তু আজ রাত ১০টার পর তার অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৪৫ এ নেমে আসে, যার ফলে কর্তব্যরত ডাক্তারগণ তাকে ভেন্টিলেশন এ নিয়ে যান। বর্তমানে উনার স্যাচুরেশন লেভেল ৯০ রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে ইউনাইটেড হাসপাতাল এর মেডিকেল বোর্ড আগামীকাল (১৯ জুলাই) সকাল এগারোটায় জরুরি বৈঠক ডেকেছেন। ফকির আলমগীরের পুত্র তার বাবার সুস্থতা প্রার্থনা করে দেশবাসীর কাছে দোয়া চান।

এর আগে বুধবার (১৪ জুলাই) ফকির আলমগীরের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজেটিভ আসার পর চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকায় রাতে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ফকির আলমগীর একজন কণ্ঠযোদ্ধা। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ছিলেন। অবশ্য এর আগে ষাটের দশক থেকেই গণসংগীত গেয়ে আসছিলেন তিনি। ক্রান্তি শিল্পী গোষ্ঠী ও গণশিল্পী গোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানে অসামান্য ভূমিকা রাখেন তিনি।

স্বাধীনতার পর ফকির আলমগীর পপ ঘরানার গানে যুক্ত হন। পাশ্চাত্য সংগীতের সাথে বাংলার লোকজ সুরের সমন্বয় ঘটিয়ে তিনি বহু গান করেছেন। সংগীতে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯৯ সালে সরকার তাকে একুশে পদক প্রদান করে।









Leave a reply