ঈদের নামাজের পর রোহিঙ্গাদের জন্য দোয়া

|

সুখ-শান্তি আর সমৃদ্ধি কামনা মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদ-উল আজহা উদযাপন হচ্ছে বাংলাদেশে। নামাজের পর দোয়ায় গুরুত্ব পেয়েছে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের বিষয়টি। মুসল্লিরা বলছেন, এই সংকট মোকাবেলায় এগিয়ে আসতে হবে বিশ্ব সম্প্রদায়কে। তাদের প্রত্যাশা, হত্যা-ধর্ষণের মত সামাজিক অপরাধ আর জঙ্গিবাদ থেকে মুক্ত হোক বাংলাদেশ।

শনিবার সকাল থেকেই একটু গুমোট আবহাওয়া। বৃষ্টিও ছিল গুড়ি গুড়ি। ঈদের জামাতে অবশ্য তার প্রভাব পড়েনি খুব একটা। নিরাপত্তা তল্লাশির মধ্য দিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে কেন্দ্রীয় ঈদগাহে আসেন মুসল্লিরা। নিরাপত্তার কারণে নামাজের ঘন্টা দু’য়েক আগে থেকেই বন্ধ ছিল আশপাশের গাড়ি চলাচল।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে হয়েছে পাঁচটি জামাত। সকাল ৭টা থেকে পৌনে ১১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এসব জামাতেও ছিল মুসল্লিদের উপচে পড়া ভিড়। খুতবায় গুরুত্ব পেয়েছে শান্তি আর সাম্যের কথা। আনন্দের এই দিনেও বিষাদ ছড়িয়েছে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বর হামলা আর নির্যাতনের ঘটনা।

ধর্ষণের মত অপরাধ দেশে বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা, সুমতি ফিরুক সবার মনে, নিরাপদে থাকুক সব নারী। শান্তির ধর্ম ইসলাম যে কোনভাবেই সন্ত্রাসবাদ -জঙ্গিবাদকে সমর্থন করে না, সে কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন আলেম-ওলামারা।

পাপ থেকে মুক্তির আকুতি হাজারো মানুষের। সাথে প্রার্থনা, ভালো থাকুক বাংলাদেশ।

/কিউএস









Leave a reply