যেভাবে একটি আস্ত প্রজাতিকে টিকিয়ে রাখলো এই কচ্ছপটি

|

প্রকৃতির অমোঘ নিয়মে গত দশকেও বিলুপ্ত হয়ে গেছে প্রাণিজগতের বেশ কিছু প্রজাতি। এর মধ্যে বাইজি ডলফিন, স্প্রিক্স মস্কো (বিশেষ প্রজাতির কাকাতুয়া), লিভারপুল পিজিয়ন (কবুতর) এবং পশ্চিম আফ্রিকার কালো গণ্ডার উল্লেখযোগ্য। কিন্তু অদ্ভুত কায়দায় একটি প্রাণী নিজেকে রক্ষা করেছে বিলুপ্তির হাত থেকে- গ্যালাপাগোসের দানবীয় কচ্ছপ। আর এর পুরো কৃতিত্ব দেয়া হচ্ছে ডিয়েগো নামের এক শতবর্ষী কচ্ছপকে।

এতটুকু পড়ে যে কেউ ভাবতে পারেন কোনো ‘অ্যানমি’ মুভির গল্প বলা হচ্ছে। কিন্তু, সিনেমাকে হার মানিয়ে দিয়েছে ডিয়েগো। একাই জন্ম দিয়েছে ৮০০ কচ্ছপ ছানার! প্রাণী গবেষকরা মশকরা করে ডিয়েগোকে ‘ব্যস্ত বালক’ বলে অভিহিত করছে।

প্রায় ১৩টি মাঝারি আকৃতির শিল পাথরের সমান ওজন এই বীর ডিয়েগোর, দৈর্ঘ্য ১.৫ মিটার। কীভাবে ডিয়েগো পুরো একটি প্রজাতিকে রক্ষা করলো?

গ্যালাপাগোস দ্বীপে বিশেষ প্রজাতির দানবীয় কচ্ছপ বিলুপ্তির পথে ছিল। মাত্র ৫০ বছর আগেও সেখানে মাত্র ২টি পুরুষ ও ১২টি স্ত্রী কচ্ছপ ছিল। কিন্তু তারা এতটা ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল যে তাদের সাক্ষাৎ হওয়াটাই ছিল কঠিন। গবেষকরাও হাল ছেড়ে দিয়েছিলেন, এদের বুঝি আর টেকানো গেল না!

এরমধ্যে, একদল নাছোড়বান্দা গবেষক স্যান ডিয়াগো চিড়িয়াখানায় ডিয়েগোর সন্ধান পায়। তাকে নিয়ে আসা হয় গ্যালাপাগোস দ্বীপে। সেখানে ডিয়েগোকে ছেড়ে দেয়ার পর সে দ্রুতই স্ত্রী কচ্ছপদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে। অল্প সময়েই জন্ম দেয় ৮০০ কচ্ছপের।

গ্যালাপোগাস জাতীয় উদ্যানের প্রাণী বিশেষজ্ঞ ওয়াশিংটন টাপিয়া জানান, ডিয়েগো এই মুহূর্তে ৬টি স্ত্রী কচ্ছপের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে মেলামেশা করছে। তার জন্ম দেয়া কচ্ছপ ছানাগুলোও বেশ সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হয়েছে।

বর্তমানে সমগ্র অঞ্চলে বসবাস করা বিশেষ প্রজাতির এই কচ্ছপের ৪০ ভাগেরই জন্ম ডিয়েগোর ঔরসে। নিয়মিত সঙ্গমের মাধ্যমেই একটি আস্ত প্রজাতিকে টিকিয়ে রেখেছেন ‘ব্যস্ত বালক’ ডিয়েগো!

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply