খালেদা জিয়ার আইনজীবীকে প্রধান বিচারপতি- ‘আপনি কি কোর্টকে থ্রেট করছেন?’

|

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। এই সময়ের মধ্যে জামিন স্থগিতের আবেদনকারীদের নিয়মিত লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করতে বলা হয়েছে।

জামিন স্থগিত চেয়ে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের করা আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন, বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসাইন হায়দার। এ আদেশের ফলে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়া আপাতত কারাগার থেকে বের হতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

শুনানিতে আইনজীবীর বক্তব্য না শোনার অভিযোগ তুলে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। শুনানির এক পর্যায়ে উত্তেজিত ভাষায় এক আইনজীবী কথা বলায় প্রধান বিচারপতি তাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনি কি কোর্টকে থ্রেট করছেন? বেশি বাড়াবাড়ি হয়ে যাচ্ছে’। একপর্যায়ে আদালত কক্ষ থেকে ‘শেম শেম’ বলে বের হয়ে আসেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। পরে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ দাবি করেন তারা।

আদালতে উপস্থিত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, এজে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল।

আদেশের পর খালেদা জিয়ার প্যানেল আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেছেন, আমরা ব্যথিত দেশের মানুষও ব্যথিত, মর্মাহত। বিচার বিভাগের কাছ থেকে আমরা এটা আশা করি নাই। এ ধরনের লঘু দণ্ডে দেশের সর্বোচ্চ আদালত কখনো ইন্টারফেয়ার করেন নাই।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, আদালত লিভ টু আপিল ফাইল করার নির্দেশ দিয়ে রোববার পর্যন্ত জামিন আদেশ স্থগিত করেছেন। এক আইনজীবীকে সংযত হওয়ার কথা বলেছেন। আপিল বিভাগ আজ যে আদেশ দিয়েছেন, তা সচরাচর দেয়া হয়ে থাকে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেছেন, খালেদা জিয়ার জামিন আদেশ আগামী রোববার পর্যন্ত স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। আদালত বলেছেন, রোববারের মধ্যে লিভ টু আপিল ফাইল করতে। এ আদেশের ফলে আমি আনন্দিত।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসনের পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়। এর আগে গত সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসনকে চার মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আগামী চার মাসের মধ্যে মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করতে সংশ্লিষ্ট শাখাকে নির্দেশ দেন আদালত।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply