মালদ্বীপে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার

|

ভারত মহাসাগরের দ্বীপরাষ্ট্র মালদ্বীপে ৪৫ দিন পর জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দেশটির রাষ্ট্রপতি আব্দুল্লাহ ইয়ামিন আব্দুল গইয়ুম এটি প্রত্যাহার করেন। দেশটির সংবিধানের প্রদত্ত ক্ষমতাবলে তিনি এই জরুরি অবস্থা জারি করেছিলেন।

মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতির দপ্তর জানিয়েছে, “রাজনৈতিক ক্রীড়ানড়কদের সঙ্গে যোগসাজসের মাধ্যমে সংবিধান এবং আইনের মানদণ্ড ও অনুশীলন লঙ্ঘন করে আইনানুগ সরকারকে হটাতে যাচ্ছিলেন সুপ্রীম কোর্টের দুই বিচারপতি। তাদের কর্মকাণ্ড ছিল জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি। সৃষ্ট সাংবিধানিক সংকটের ফলে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছিল।”

রাষ্ট্রপতির দপ্তর আরও জানায়, “কম হলেও জাতীয় নিরপাত্তার জন্য হুমকি এখনও রয়েছে গেছে। স্বাভাবিক পরিবেশ ফেরাতে নিরাপত্তা দপ্তরের সুপারিশের প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি জরুরি অবস্থা তুলে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।”

ফেব্রুয়ারির ৫ তারিখে জাতীয় নিরপাত্তার স্বার্থ বিবেচনায় নিয়ে রাষ্ট্রপতি’র আদেশ বলে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছিল।

একই মাসের ২০ তারিখে দেশটির সংসদের মাধ্যমে এই জরুরি অবস্থার মেয়াদ ৩০ দিন বাড়িয়ে নেওয়া হয়েছিল।

জরুরি অবস্থা চলাকালে প্রেসিডেন্টের সৎ ভাই ও সাবেক রাষ্ট্রপতি মামুন আব্দুল গাইয়ুম, প্রধান বিচারপতিসহ সুপ্রীম কোর্টের দুই বিচারপতি, এবং চার জন সংসদ সদস্যকে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তাদের সবার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদ আইনে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের ১০ থেকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।
দুই বিচারপতিকে গ্রেপ্তারের পর অপর তিন বিচারপতি নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে মালদ্বীপের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদকে নাশিদকে কারাগার থেকে মুক্তিদেন। চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশ গমন ও ব্রিটেনে আশ্রয় গ্রহণেরও সুযোগ দিয়েছে আব্দুল্লাহ ইয়ামিনের সরকার।
যমুনা অনলাইন: এফএইচ









Leave a reply