দেশের মাটিতেই মারা গেলেন শাহীন ব্যাপারী

|

নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় আহত শাহীন ব্যাপারী মারা গেছেন। এ নিয়ে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত বাংলাদেশির সংখ্যা দাঁড়ালো ২৭ জনে।

বিমান দুর্ঘটনায় মাথার কিছু অংশ পুড়ে যাওয়ার পাশাপাশি শাহীনের ডান পা ভেঙে গিয়েছিল। এ ছাড়া তাঁর শরীরে পেছন দিকেও আঘাত লাগে। গত ১৮ মার্চ তাকে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইটে দেশে আনা হয়। রাখা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্লাস্টিক সার্জারি অ্যান্ড বার্ন ইউনিটের তত্ত্বাবধানে। বিদেশ থেকে প্রাণে বেঁচে ফিরে দেশের মাটিতে মারা গেলে শাহীন।

সোমবার বিকেল পাঁচটায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্লাস্টিক সার্জারি অ্যান্ড বার্ন ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক আবুল কালাম শাহীন ব্যাপারীর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। কয়েক দিন ধরে তিনি ঢাকা মেডিকেলের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন।

শাহীন ব্যাপারীর গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং থানায়। স্ত্রী-কন্যাসহ থাকতেন নারায়ণগঞ্জে। তিনি একটি কাপড়ের দোকানে ব্যবস্থাপক পদে কর্মরত ছিলেন।

গত ১২ মার্চ ইউ এস বাংলার ড্যাশ ৮ কিউ ৪০০ মডেলের বিমানটি ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিধ্বস্ত হয়। এ ঘটনায় শাহীন ব্যাপারীসহ মোট ২৭ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply