শব্দদূষণ, তাই স্বামীকে ডিভোর্স!

|

স্বামীর এলাকায় শব্দদূষণ, আর শব্দদূষণ বন্ধে স্বামী কোন ভূমিকা না নেয়ায় বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন করেছেন স্ত্রী। ভারতের বিহারের হাজীপুরে এঘটনা ঘটে।

জানা যায়, চার বছর আগে প্রেম করেই বিয়ে করে রাকেশ-স্নেহা। কিন্তু স্বামীর এলাকায় সবসময় অনেক শব্দে মাইক বাজানো হয়। এতে শব্দদূষণে ভোগেন স্ত্রী স্নেহা। স্ত্রীর দাবি, এলাকার কিছু লোক বাসিন্দাদের উত্যক্ত করে তুলতে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের অজুহাতে জোরে সারাক্ষণ মাইক বাজিয়ে চলে। বারবার তাঁদের শব্দের অত্যাচার বন্ধের জন্য আবেদন, নিবেদন করেও লাভ হয়নি। স্নেহা জেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েও সুরাহা পাননি বলে অভিযোগ করেছেন। তারা কিছুই না করায় হস্তক্ষেপ চেয়ে তিনি লিখিত আবেদন করেন মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কাছেও। কিন্তু কোনও জায়গা থেকেই সাড়া না মেলায় জাতীয় মানবাধিকার কমিশনেও আবেদন করেন। কিন্তু কোথাও সমাধান না পেয়ে। স্বামীকে ডিভোর্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কারণ যে পুরুষ স্ত্রীকে যে কোনও অত্যাচার থেকে সুরক্ষা দিতে পারেন না, তাঁর সঙ্গে ঘর করা যাবে না।

এদিকে স্বামী রাকেশ প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তাকেই দুষেছেন। তিনি বলেছেন, প্রতিবেশীদের সঙ্গে ঝগড়াঝাঁটি, বিবাদে জড়িয়ে টক্কর দেওয়ার ক্ষমতা তাঁর নেই।

এই অবস্থায় দুই পরিবারের লোকেরা স্নেহাকে বোঝাচ্ছেন, এরকম একটা কারণে তিনি যাতে বিচ্ছেদ চেয়ে অনড় না থাকেন।

এদিকে স্নেহা মাইকের দাপটের প্রতিবাদ করায় কিছু দুষ্কৃতী তাঁদের বাড়িতে ইট-ঢিল ছুঁড়েছে বলেও অভিযোগ। পুলিশকে জানালেও তারা কিছুই করেনি বলে জানিয়েছে পরিবারটি।









Leave a reply