অত্যাচারী ছেলের মৃত্যু চাইলেন মা

|

ছেলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ সবাই। ঘরে-বাইরে অশান্তি সৃষ্টি করে বেড়াচ্ছে, এমনকি পাঁচ দিন ধরে ছুরিতে শান দিয়েছে আপন বড় ভাইকে খুন করবে বলে! ছোট ভাইয়ের হাত থেকে বাঁচতে থানায় জিডি করেন বড় ভাই। তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাই শিকার হন ছুরিকাঘাতের। এমন অত্যাচারী ছেলের মৃত্যু কামনা করলেন মা।

ময়মনসিংহের গৌরীপুরের ঘটনা এটি। মঙ্গলবার রাতে পৌর শহরের জেলখানা মোড়ে উজ্জ্বল মিয়া নামের সে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতের শিকার হন পুলিশের এসআই আসাদুজ্জামান আসাদ। এর আগে, আপন বড় ভাই কাঞ্চন মিয়াকে হত্যার জন্য ৫ দিন ধরে ছুরি শান দেয় উজ্জ্বল। ভাইয়ের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে নিরাপত্তা চেয়ে থানায় মামলা করেন কাঞ্চন মিয়া।

কাঞ্চন মিয়ার স্ত্রী সোমা আক্তার জানায়, উজ্জ্বল মিয়া ইয়াবা আসক্ত, বাড়ির গৃহবধূদের সাথে খারাপ আচরণ করে সে। এ নিয়ে কলহের জের ধরে কাঞ্চন মিয়াকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় উজ্জ্বল। এজন্য বেশ কয়েকদিন ধরেই ঘোরাঘুরি করছিল সে। গত সোমবার হামলাও চালিয়ে ছিল। এ ঘটনায় মঙ্গলবার গৌরীপুর থানায় জিডি করে কাঞ্চন।

ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে এসে এসআই আসাদুজ্জামান আসাদ উজ্জ্বল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। ঘরের মাটি খুঁড়ে একটি রামদা উদ্ধার করে পুলিশ। তাকে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন মাথা খারাপ বলে ছাড়িয়ে নেয়। এসআই গাড়িতে ওঠার সময় ঘর থেকে শান দেয়া সেই ধারালো ছুরি নিয়ে এসে পেছন দিক থেকে ছুরিকাঘাত করে মুহূর্তেই পালিয়ে যায় উজ্জ্বল। মুমূর্ষু অবস্থায় এসআই আসাদুজ্জামানকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়।

আইসিইউর ইনচার্জ ডা. রকিবুল ইসলাম জানান, আহত এসআই আসাদ আশঙ্কামুক্ত নয়। পাকস্থলী ও কিডনি মারাত্মকভাবে জখম হয়েছে। ৭২ ঘণ্টা নিবিড় পরিচর্যায় রাখা হবে। তারপর বলা যাবে।

আসাদুজ্জামান আসাদকে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেছে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি রামদা উদ্ধার করেছে। এসআই আসাদের শরীরে অস্ত্রোপচার করে ছুরিটাও বের করা হয়েছে।

এদিকে ছেলে উজ্জ্বল মিয়ার অত্যাচার-নির্যাতনে অতিষ্ঠ মা জোছনা আক্তার। যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে ছেলেকে মেরে ফেলার আকুতি জানান তিনি। বলেন, তার এ সন্তানের জন্য বাড়িতে অশান্তি-ঝগড়া লেগেই আছে। পাঁচ বছর আগে বউকে ছেড়ে দিয়েছে। এরপর থেকেই সবার সঙ্গে খারাপ আচারণ করে। ওর জ্বালা আর সহ্য হয় না। সবার কাছে বলছি এরে মেরে ফেলুক। ও মরলে বাড়িতে শান্তি আসবে।

এমন ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকে বলছেন, ইয়াবার নেশার কারণেই এই অশান্তি।

যমুনা অনলাইন: টিএফ









Leave a reply